কবি রুদ্রের ২৯তম মৃত্যু বার্ষিকী আজ

শেখ রাফসান বাগেরহাট প্রতিনিধিঃ কবি রুদ্রের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে (২১শে জুন) রবিবার রুদ্র স্মৃতি সংসদ কবির মাজারে মোংলার মিঠাখালীতে সকালে শোভাযাত্রা সহকারে কবরে পুষ্পস্তবক অর্পণ, মিলাদ মাহফিল, দোয়া ও সন্ধ্যায় রুদ্র স্মৃতি সংসদ কার্যালয়ে সীমিত পরিসরে স্মরণ সভার আয়োজন করেছেন। এছাড়াও মোংলা সম্মেলিত সাংস্কৃতিক জোট, মোংলা সাহিত্য পরিষদ, মোংলা স্টুডেন্টস ক্যাটারস, তারুণ্য মোংলা, প্রথম আলো বন্ধুসভা মোংলাসহ বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন দিনটি উপলক্ষে কর্মসূচি পালন করেছেন। সকলে কবির মাজার জিয়ারত এ উপস্থিত ছিলেন, মোঃ নূর আলম শেখ, বিল্লাল হোসেন, নাজমুল হক, সত্তার ইজারাদার, সাইফুল গোলদার, আজিজ মোড়ল, লিটন গাজী, বায়জিদ হোসেন, মনির হোসেন, ইমরান খান, মাহরুফ, মেহেদী বাবুসহ অনেকে

অকাল প্রয়াত এই কবি নিজেকে মিলিয়ে নিয়েছিলেন আপামর নির্যাতিত মানুষের আত্মার সঙ্গে। সাম্যবাদ, মুক্তিযুদ্ধ, ঐতিহ্য চেতনা ও অসাম্প্রদায়িকবোধে উজ্জ্বল তার কবিতা। ‘জাতির পতাকা আজ খামচে ধরেছে সেই পুরোনো শকুন’এই নির্মম সত্য অবলোকনের পাশাপাশি উচ্চারণ করেছেন অবিনাশী স্বপ্ন ‘দিন আসবেই দিন সমতার’। যাবতীয় অসাম্য, শোষণ ও ধর্মান্ধতার বিরুদ্ধে অনমনীয় অবস্থান তাকে পরিণত করেছে ‘তারুণ্যের দীপ্র প্রতীক’-এ। একই সঙ্গে তাঁর কাব্যের আরেক প্রান্তর জুড়ে রয়েছে স্বপ্ন, প্রেম ও সুন্দরের মগ্নতা।
মাত্র ৩৫ বছরের (১৯৫৬-১৯৯১) স্বল্পায়ু জীবনে তিনি সাতটি কাব্যগ্রন্থ ছাড়াও গল্প, কাব্য নাট্য এবং ‘ভালো আছি ভালো থেকো’ সহ অর্ধ শতাধিক গান রচনা ও সুরারোপ করেছেন। পরবর্তীকালে এ গানটির জন্য তিনি বাংলাদেশ চলচ্চিত্র সাংবাদিক সমিতি প্রদত্ত ১৯৯৭ সালের শ্রেষ্ঠ গীতিকারের (মরণোত্তর) সম্মাননা লাভ করেন। ‘উপদ্রুত উপকূল’ ও ‘ফিরে চাই স্বর্ণগ্রাম’ কাব্যগ্রন্থ দুটির জন্য ‘সংস্কৃতি সংসদ’ থেকে পরপর দু’বছর ‘মুনীর চৌধুরী সাহিত্য পুরষ্কার লাভ করেন। সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট ও জাতীয় কবিতা পরিষদ গঠনে তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন।

শেয়ার করুন

কমেন্ট করুন

     এই ধরনের আরও খবর

ফেসবুক

পুরাতন খবর খুঁজুন

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০