বাংলাদেশ ও ভারতের প্রধানমন্ত্রীর দূরদর্শী নেতৃত্বেই বাংলাদেশ-ভারত সোনালি অধ্যায়ের হাইওয়েতে

গ্রামীন নিউজ ডেস্ক: বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী’র দূরদর্শী নেতৃত্বে বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্ক সোনালী অধ্যায়ের হাইওয়েতে চলমান রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন ভারতের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী ভি মুরালিধরন। গত ২৯জুন সোমবার ডিজিটাল সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।
‘বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে বাণিজ্যে সুযোগ ও চ্যালেঞ্জ’ শীর্ষক এ সম্মেলনের আয়োজন করে কনফেডারেশন অব ইন্ডিয়ান ইন্ডাস্ট্রি(সিআইআই)। সম্মেলনে অংশ নেন ভারতের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী ভি. মুরালিধরন, দিল্লিতে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার মুহম্মদ ইমরান ও ঢাকায় নিযুক্ত ভারতের হাইকমিশনার রীভা গাঙ্গুলি দাশ। সম্মেলনে ভারতের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী ভি. মুরালিধরন বলেন, ২০১৪ সাল থেকে এই দুই দেশের সম্পর্কের খুব উন্নয়ন ঘটেছে। যার মধ্যে দুটি দেশ স্থলসীমা চুক্তি অনুমোদন, সমুদ্রসীমা নির্ধারণ এবং সংযোগের বিষয়ে চুক্তি স্বাক্ষর করেছে। ভারত বাংলাদেশকে সহায়তার পরিমাণ বাড়িয়েছে, এটিকে আমাদের ছাড় ছাড়ের বৃহত্তম প্রাপক হিসাবে তৈরি করেছে। এছাড়াও বাংলাদেশে ১ হাজার ৭৬ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ রপ্তানি, বাংলাদেশি নাগরিকদের জন্য ৭ দশমিক ৪ মিলিয়ন ভিসা ইস্যু করা হয়েছে। বাংলাদেশের বিভিন্ন এলাকায় ৪০টির বেশি প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছে ভারত। তিনি আরো বলেন, করোনা মহামারিকালে দুই দেশ সহযোগিতার মাধ্যমে খুব দ্রুতই অর্থনৈতিক প্রভাব কাটিয়ে উঠা সম্ভব।
সম্মেলনে সভাপতির বক্তব্যে, বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিআইডিএ) নির্বাহী চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম জোর দিয়ে বলেন, জ্বালানি, পরিবহন ও রসদ ভারত বাংলাদেশের অর্থনৈতিক সহযোগিতার মধ্যে একটি আশাব্যঞ্জক ক্ষেত্র হিসাবে উদ্ভূত হচ্ছে। ব্যবসা বাণিজ্য, নির্মাণের অনুমতি, বিদ্যুৎ, সম্পত্তি নিবন্ধকরণ এবং সীমান্ত পেরিয়ে ব্যবসায়ের ক্ষেত্রে ব্যবসায়ের সুবিধার্থে বিভিন্ন ক্ষেত্রে বাংলাদেশ বিভিন্ন ক্ষেত্রে বেশ কয়েকটি সংস্কার করেছে। ইন্ডিয়া বাংলাদেশ চেম্বার অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (আইবিসিসিআই) সভাপতি জনাব আবদুল মাতলুব আহমদ বলেছেন, গত কয়েক বছর ধরে দু’দেশের মধ্যে বাণিজ্য ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক দ্রুত বৃদ্ধি পেয়েছে।
এরপরে “ভারত বর্ধন – বাংলাদেশ বাণিজ্য ও বিনিয়োগ” শীর্ষক একটি প্যানেল আলোচনা হয়, যার সভাপতিত্ব করেন বিদেশমন্ত্রী, অতিরিক্ত সচিব (ইআর), পররাষ্ট্র মন্ত্রক এবং ভারত সরকার। বিভিন্ন সিনিয়র ইন্ডাস্ট্রির সদস্যরা আলোচনায় অংশগ্রহন করেছিলেন।
সম্মেলনে আরো বক্তব্য রাখেন এফবিসিসিআই সভাপতি শেখ ফজলে ফাহিম, বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের নির্বাহী চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম, ভারতের এক্সিম ব্যাংকের এমডি ডেভিড রাজকুইনহা, সিআইআইয়ের মহাপরিচালক চন্দ্রজিৎ ব্যানার্জি, ইন্ডিয়া-বাংলাদেশ চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির প্রেসিডেন্ট আব্দুল মাতলুব আহমেদ প্রমুখ।

শেয়ার করুন

কমেন্ট করুন

     এই ধরনের আরও খবর

ফেসবুক

পুরাতন খবর খুঁজুন

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০