কলারোয়ায় সংবাদ প্রকাশ করায় সাংবাদিককে হুমকি, থানায় জিডি, জেলা প্রশাসকের হস্তক্ষেপ কামনা

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি: সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলার সীমান্তবর্তী ৫ নং কেড়াগাছি ইউনিয়নের প্রাণকেন্দ্র বালিয়াডাঙ্গা বাজার মসজিদের সম্মুখে ও টোয়া বাজার সংলগ্ন সরকারি জমিতে নিয়ম বহির্ভূত ভাবে অবৈধ স্থাপনা নির্মাণের সংবাদ প্রকাশ করায় ঐ সাংবাদিককে মারাত্মক হুমকি দিয়েছে কথিত ঐ ভূমি দস্যুরা।
এ ঘটনায় কলারোয়া থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) কলা হয়েছে ।যার নং-১৮০

সাধারণ ডায়েরি সূত্রে জানা গেছে, সরকারি সম্পত্তি দখলবাজীর স্বর্গরাজ্যে পরিণত হওয়া কলারোয়া উপজেলার সীমান্তবর্তী ৫ নং কেঁড়াগাছি ইউনিয়নের প্রাণকেন্দ্র বালিয়াডাঙ্গা বাজার মসজিদের সম্মুখে টোয়া বাজার সংলগ্ন সরকারি (খাস) জমিতে নিয়ম বহির্ভূত ভাবে বন্দোবস্ত বিহীন কলম পিলার দিয়ে অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ করছিলো স্থানীয় মৃত সামছের আলীর পুত্র মোঃ মহসিন আলী (৪৫) ও মোঃ মিজানুর রহমান (৫৫) ।
অতঃপর রাষ্ট্রীয় সম্পদ রক্ষার্থে সাংবাদিক শফিকুর রহমান বিষয়টি কলারোয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মৌসুমী জেরিন কান্তাকে জানিয়ে স্থানীয়,জাতীয় ও একাধিক অনলাইন সংবাদ মাধ্যম প্রকাশ করেন।এবং কলারোয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার তাৎক্ষণিক ভাবে ব্যাবস্থা গ্রহণের মাধ্যমে ঐ অবৈধ স্থাপনা নির্মাণ কার্যক্রম বন্ধ করেন।
অতঃপর- গত ০৪ জুলাই শনিবার আনুমানিক রাত ০৯.৩০ টার দিকে সাংবাদিক শফিকুর রহমানের পিতা ৫ নং কেড়াগাছি ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ও কলারোয়া হোমিওপ্যাথিক মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের পরিচালনা পর্ষদের সদস্য মোঃ আনিছুর রহমান, নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যেদি ক্রয় করতে ঐ বাজারের আব্দুস সোবহানের মুদি দোকানে গেলে স্থানীয় বালিয়াডাঙ্গা বাজার কমিটির সেক্রেটারি ও স্থানীয় রমজান আলীর পুত্র মোঃ আলী হোসেন নেতৃত্বে ও ঐ বাজারের আনসার ক্লাবের পশ্চিম পাশের সরকারি জমিতে অবৈধ স্থাপনা নির্মাণকারী চিহ্নিত ভূমি দস্যু সফিকুল ইসলাম ওরফে সফি’র ইন্ধনে ঐ সরকারি জমিতে অবৈধভাবে স্থাপনা নির্মাণ কারী -মোঃ মহসিন আলী,মোঃ মিজানুর রহমান,জাহাঙ্গীর, সাহিনুর রহমান সহ স্থানীয় ১০ – ১৫ জনের সংঘবদ্ধ একটি দল সাংবাদিক শফিকুরের পিতাকে ঘিরে ধরে এবং কেন তিনি ঐ অবৈধ স্থাপনা নির্মাণের বিষয়ে সংবাদ প্রকাশ করেছেন ,তার কৈফিয়ত চায় ও বলে তারা সন্ধ্যা থেকে তাকে খুঁজছে, পেলে মারধর করবে ,হাত পা ভেঙে ছিড়ে ফেলবে,কেন সংবাদ প্রকাশ করেছে কে বাঁচাবে দেখে নেবে। চিৎকার করে এই জাতীয় হুমকি- ধামকি, অবান্তর ও পারিবারিক সম্মানহানিকর কথা বার্তা বলতে থাকে। এর আগে ঐ দিন রাতে ও সকালে তারা সাংবাদিক শফিকুর রহমানকে ফোন ও ফেসবুকে নানা প্রকার হুমকি ও অসৌজন্য মুলক মন্তব্য করতে থাকে। সংশ্লিষ্ট সবাই চোরাকারবারি ও দূর্ধর্ষ প্রকৃতির হওয়ায় সাংবাদিক শফিকুর রহমানর পরিবার চরম নিরাপত্তাহীনতা ও মর্যাদা হানীকর পরিস্থিতিতে সময়াতিপাত করছেন বলে জানান।
তিনি আরো বলেন, অভিযুক্ত সরকারি সম্পত্তি জবর দখলকারী গন দূর্ধর্ষ ও সন্ত্রাস প্রকৃতির হওয়ায় যেকোনো সময় আমার ও আমার পরিবারের জীবন, মান ও সম্পদের ক্ষতি সাধন করতে পারে বলে আমার দৃঢ় বিশ্বাস ।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে কলারোয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শেখ মূনীর উল গীয়াস বলেন, বিষয়টি জেনেছি,তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ দিকে,রাষ্ট্রীয় সম্পদ রক্ষার্থে সংবাদ প্রকাশ করায় মারাত্মক হুমকি প্রদান কারীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ ও ঐ সাংবাদিক পরিবারের সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন স্থানীয় গণমাধ্যম কর্মীবৃন্দ,সাংবাদিক সংগঠন ও এলাকার সচেতন জনসাধারণ ।

শেয়ার করুন

কমেন্ট করুন

     এই ধরনের আরও খবর

ফেসবুক

পুরাতন খবর খুঁজুন