বাঘায় সিএইচসিপি’র বিরুদ্ধে রুগীদের প্রতি অসৌজন্যমূলক আচরণ সহ নানান অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজশাহীর বাঘায় সিএইচসিপি (কমিউনিটি হেলথ কেয়ার প্রোভাইডার) এর বিরুদ্ধে রুগীদের প্রতি অশালীন আচরণের অভিযোগ উঠেছে।

বর্তমান সরকার যেখানে সবার জন্য স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতে ব্যাপক কাজ করছে। বিশেষ করে প্রত্যন্ত অঞ্চলে সবার কাছে স্বাস্থ্য সেবা পৌঁছে দিতে কমিউনিটি ক্লিনিক প্রধান ভূমিকা রাখছে। প্রধানমন্ত্রীর অন্যতম এই উদোগ ব্যাপক সফলতা অর্জন করছে। ক্লিনিকগুলোতে আন্তরিক পরিবেশে বিভিন্ন রোগের চিকিৎসা দেওয়াসহ সম্পূর্ণ সরকারিভাবে স্বাস্থ্য সেবা প্রদানের মাধ্যমে পল্লী অঞ্চলের মানুষের জীবনমান নয়নে কাজ করে যাওয়ার কথা এই কমিউনিটি ক্লিনিকগুলোর। অথচ এখানে আসা গ্রাম এর সবচাইতে অবহেলিত মানুষ গুলোর ভাগ্যে জোটে নানারকম হয়রানিসহ সিএইচসিপির তিক্ততার কথার ঝুড়ি।

বাঘা উপজেলার মনিগ্রাম ইউনিয়নের হিলালপুর কমিউনিটি ক্লিনিকের সিএইচসিপি (কমিউনিটি হেলথ কেয়ার প্রোভাইডার) মো: তৌহিদুর রহমানের বিরুদ্ধে উঠে আসে নানান অভিযোগ হিলালপুর কমিউনিটি ক্লিনিকে সেবা নিতে আসা অনেকই জানান তাদের এই দুর্ভোগের কথা। তারা বলেন দিনের-পর-দিন এখানে সঠিক ওষুধ পাওয়া যায় না যদিও তা পাওয়া যায় তা অনেক কথা শুনতে হয় সিএইচসিপির কাছে।

অথচ সরকার বিনামূল্যে ক্লিনিকগুলোতে প্রায় ৩০ থেকে ৩২ প্রকার ঔষধ সরবরাহ করে থাকে যা সেবা গ্রহণ করতে আসা প্রত্যেক রোগীকে প্রদান করার কথা। অথচ নাম মাত্র ঔষধ প্রদানের অভিযোগ আছে তার বিরুদ্ধে। কেউ প্রতিবাদ করলে শুরু হয় অসৌজন্যমূলক আচরণ।

মহদীপুর এলাকার বাসিন্দা নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক গর্ভবতী মহিলা বলেন, আমার গর্ভকালীন বয়স পাঁচ মাস এখানে গর্ভকালীন স্বাস্থ্য সেবা নিতে এসেছি এসে দেখি গেটের কাছে একজন মহিলা চেয়ারে বসা তিনি আমাকে কিছুক্ষণ অপেক্ষা করতে বলেন। কিছুক্ষণ অপেক্ষা করি এরপর আবার দেখা করি তিনি আবারও আমাকে কিছুক্ষণ অপেক্ষা করতে বলেন। আমি গর্ভবতী মানুষ অপেক্ষা করতে করতে বেলা গড়িয়ে আসে তখন মেয়েটি আমাকে ভিতরে ডাকে সেখান গেলে ডাক্টার (সিএইচসিপি) তৌহিদুর রহমান বলেন এমনিতে আমরা করোনার জন্য স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে আছি তারপর আবার আপনারা বেশি বিরক্ত করেন, আপনারা ঘর থেকে বের হন কেন? তারপর তিনি তিক্ততার সরে বলেন বাঘা থেকে আলট্রাসনোগ্রাফি করতে হবে সেই রিপোর্ট নিয়ে এলে এখানে কিছু টাকা লাগবে ভর্তি হয়ে একটি কার্ড দেব সেই কার্ড নিলেই তো আমরা এখান থেকে সেবা প্রদান করব।

কয়েকজন সেবা প্রত্যাশীসহ কমিউনিটি ক্লিনিকের জমিদাতা আদম আলী বলেন, আমরা এখানে সরকারের উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড এবং জনসেবার জন্য ক্লিনিক স্থাপনের জমি দান করেছি অথচ আমরা কোন সেবা নিতে গেলে এই তৌহিদ আমাদের সাথে যেরকম আচরণ যে করে তা বলার না এবং আশপাশের লোকজন বলেন আমরা দেখি প্রায়ই লোকজনের সঙ্গে ঝগড়া হয়েছে। কেউ কিছু বললে বলে আমি মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তান আপনারা আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ করে পারবেন না। ভুক্তভোগী অনেকেই তার বিরুদ্ধে অভিযোগ করার সাহস পান না।

সম্প্রতি তার বিরুদ্ধে মনগড়া কমিউনিটি ক্লিনিক পরিচালনা কমিটি গঠনসহ তার এহেন আচরন বরদাস্ত না করাই কোন কারন ছাড়াই পূর্বের কমিটির সদস্য পদ বাতিল করে তার পছন্দের ব্যক্তিকে মনোনয়ন দিয়ে নতুন কমিটি গঠনসহ ক্লিনিকে নির্ধারিত সময় অবস্থান না করা এবং রোগীদের প্রয়োজনীয় ওষুধ প্রদান না করা সহ স্বাস্থ্য সেবা গ্রহণ করতে আসা সেবা প্রত্যাশীদের সাথে অসৌজন্যমূলক আচরণ করার অভিযোগ উঠেছে। অত্র ক্লিনিক এর তত্ত্বাবধানে আটটি ইপিআই টিকা কেন্দ্র আছে। যার সঠিক তদারকি না করাসহ তার কৃতকর্মের পক্ষের না থাকায় দীর্ঘদিনের পরিচিত একটি জায়গা থেকে টিকাদান কেন্দ্র ক্লোজ করার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে।

অভিযোগের বিষয়ে হিলালপুর কমিউনিটি ক্লিনিকের সিএইচসিপি তৌহিদুর রহমানের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, প্রতিদিন অনেক রোগী দেখতে হয় সব সময় মন মানসিকতা একরকম থাকে না, তাছাড়া বাজারে আমার একটি দোকান রয়েছে সেখানে আমাকে সময় দিতে হয়। কেন্দ্র পরিবর্তনের বিষয়ে তিনি বলেন আমার সিসির অধীনে আটটি কেন্দ্র রয়েছে কোন কেন্দ্র কোথায় রাখবোএটা একান্তই আমার ব্যাপার বলেই ফোন কেটে দেন।

সিএইচসিপির প্রতি সাধারন জনগনের অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা অফিসার ডা: আকতারুজ্জামান বলেন, অভিযোগ পেলে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা গ্রহণ করব স্বাস্থ্য সেবা দেয়ার নামে দুর্নীতি ও দায়িত্বে অবহেলা এটা কখনো মেনে নেওয়া যাবেনা।

শেয়ার করুন

কমেন্ট করুন

     এই ধরনের আরও খবর

ফেসবুক

পুরাতন খবর খুঁজুন