গাইবান্ধা পানি উন্নয়ন বোর্ডের অবহেলা আতঙ্কে লক্ষাধিক পরিবার

বিশেষ প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধা পানি উন্নয়ন বোর্ডের অবহেলা ও অব্যাবস্থাপনার কারনে জেলার ফুলছড়ি ও সদর উপজেলার লক্ষাধিক পরিবার পানি বন্দি হওয়ার আতঙ্কে।

আজ বুধবার সকাল হতে গাইবান্ধার বন্যা পরিস্থিতি দেখতে জেলার ফুলছড়ি উপজেলার সৈয়দপুর, কেকতিরহাট, ভাষারপাড়া সহ বিভিন্ন এলাকায় গিয়ে চোখে পড়ে ফুলছড়ি উপজেলা রক্ষা বাঁধ নির্মাণে ব্যাপক অনিয়ম ও অব্যাস্থাপনার চিত্র। ফুলছড়ি রক্ষা বাঁধের ভাষারপাড়া অংশে বাঁধের নিচে থাকা ড্রেন সম্পূর্ণ বন্ধ না করে তার উপরে মাটি, বালু ফেলে বাঁধের কাজ শেষ করে। আর এই কারনেই গতকাল মঙ্গলবার মধ্যরাত হতে সেই ড্রেনের অংশ দিয়ে ঢুকছে পানি। পানি উন্নয়ন বোর্ডের এই ধরনের কাজের জন্য আজ বন্যা আতঙ্কে গাইবান্ধা সদর ও ফুলছড়ি উপজেলার লক্ষাধিক পরিবার। তবে ঐ স্থান দিয়ে পানি প্রবাহিত হওয়ার কারন কি গতকাল রাত থেকে স্থানীয় জনগনের সহযোগীতা নিয়ে, জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ড, ফুলছড়ি উপজেলা প্রশাসন, ফায়ার ব্রিগেড এর একটি টিম কাজ করলেও এই খবর লেখা পর্যন্ত ঐ পানি প্রবাহিত হওয়া বন্ধ করতে পারে নি। এতে করে বাঁধের ঐ অংশটি যে কোন সময় ভেঙ্গে নতুন করে সদর ও ফুলছড়ি উপজেলার কয়েকটি এলাকা প্লাবিত হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

সরেজমিনে ঘটনাস্থলে গিয়ে কথা হয় ফুলছড়ি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জিএম সেলিম পারভেজের সঙ্গে, এসময় তিনি বলেন, আমি সৈয়দপুর এলাকার পুরাতন একটি বাঁধের ভাঙ্গা অংশগুলো বন্ধে একাধিকবার জেলা সমন্বয় কমিটির মিটিং এ উপস্থাপন করলেও পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তারা ঐ টি আমলে না নেওয়ায় আজ এই পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। তিনি আরো বলেন, ঐ ভাঙ্গা অংশগুলো যদি পানি বাড়ার আগে বন্ধ করা হতো তাহলে এভাবে এই এলাকায় পানি ঢুকতে পারতো না। আর আজ যে অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে তাও হতো না। আসলে জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তারা পরিত্যাক্ত বাঁধ, ঐ বাঁধে কোন কাজ করা যাবে না বলে উড়িয়ে না দিয়ে যদি কাজ করতো তাহলে আজ দিনরাত এককরে এভাবে কাজ করতে হতো না।

এসময় ঐ স্থানে উপস্থিত থেকে বাঁধের নিচদিয়ে পানি প্রবাহ বন্ধে বিভিন্ন দিক নির্দেশনা দিতে দেখা যায় গাইবান্ধার জেলা প্রশাসক জনাব আব্দুল মতিন কে। তার সঙ্গে কথা বলতে কয়েকবার এগিয়ে যাওয়া হলেও এই সময় তার বক্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি।

শেয়ার করুন

কমেন্ট করুন

     এই ধরনের আরও খবর

ফেসবুক

পুরাতন খবর খুঁজুন