বাঘায় প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগে এলাকাবাসীর মানববন্ধন

স্টাফ রিপোর্টারঃ রাজশাহীর বাঘা উপজেলার হরিরামপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে নানা অনিয়মের অভিযোগে মানববন্ধন করেছে এলাকাবাসী।
বুধবার (১৫ই জুলাই) শত শত মানুষ এই মানববন্ধনে অংশ নেন। হরিরামপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে মনগড়া কমিটির সদস্য বৃদ্ধির অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। উক্ত মানববন্ধনে অংশগ্রহণকারী অভিভাবক আবু সাইদ দশম শ্রেণির ছাত্রের বড় ভাই আবু তালিব বলেন, অভিভাবক কমিটি গঠন সম্পর্কে তিনি কিছুই জানেন না।
হরিরামপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মোকাররম হোসেন বলেন, প্রধান শিক্ষক শাহ আলম (খোকন) প্রস্তুতি কমিটির ব্যাপারে কারো সাথে পরামর্শ না করেই তার মন মত ব্যক্তিকেই অভিভাবক সদস্য বানাচ্ছেন এ ব্যাপারে তিনি তার প্রতিকার চান। নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন শিক্ষক বলেন তিনি পুরোপুরি অবৈধভাবে কমিটি গঠন করার চেষ্টা করছেন।

অভিভাবক বেলাল বলেন, প্রধান শিক্ষকের যোগসাজশে স্কুলের সাবেক সভাপতি হাজী মনসুর পীর অর্থের বিনিময়ে পুনরায় সভাপতি হওয়ার চেষ্টা করছেন।

এলাকার সচেতন মহলের অনেকেই জানান প্রধান শিক্ষক বর্তমানে যাকে সভাপতি নির্বাচিত করার জন্য বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করছেন তিনি হলেন হাজী মুনসুর রহমান পীর। বিদ্যালয়ের সভাপতি থাকাকালীন সময়ে হাজী মনসুর পীর তার ছোট ছেলেকে স্কুলে নিয়োগ দেয়া। এছাড়াও বিগত সময়ে তিনি সভাপতি থাকা অবস্থায় তার দুই ছেলে এবং জামাতাকে স্কুলে শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ প্রদান করেছেন।

মুক্তিযুদ্ধা আনছার আলী বলেন, অনেক কষ্ট ত্যাগ-তিতিক্ষার মধ্য দিয়ে দেশকে আমরা স্বাধীন করেছি। আর এই স্বাধীন দেশে কোন ধরনের অন্যায় অনিয়ম বরদাস্ত করা হবে না তিনি আরো বলেন বিদ্যালয়টি যেন সুষ্ঠুভাবে পরিচালিত হয় সেদিকে সকলকে নজর দিতে হবে।

সদ্য বিদায়ী হরিরামপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের সভাপতি নওশাদ আলী বলেন, প্রধান শিক্ষক বর্তমান সকল কার্যক্রম নিজের ইচ্ছামতোই চালাচ্ছেন। তিনি আরো জানান, প্রধান শিক্ষক খোকন আলী বিদ্যালয়ের অর্থনৈতিক সুবিধা পাওয়ার জন্য হাজী মুনছুর আলী পীরকে বিদ্যালয়টির সভাপতি করার জন্যে নিয়ম বর্হিভূত অভিভাবক কমিটি করার চেষ্টা করছে।

সাবেক সভাপতি আরো জানান, মুনছুর আলী পীর একজন জামায়াত নেতা ছিলেন, এখনো তিনি বিভিন্ন সময় গোপনভাবে দলীয় নেতা-কর্মীদের সহায়তা করে চলেছে। আমার কথা যদি মিথ্যা হয় স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গদের জিজ্ঞেস করলে জানা যাবে।

আর আমি সভাপতি থাকাকালীন এপর্যন্ত ৯৪০ জন ছাত্র-ছাত্রীকে ব্যক্তিগত অর্থায়নে উপবৃত্তি দিয়ে আসছি। ৬ষ্ঠ থেকে ১০ম শ্রেণি পর্যন্ত যথাক্রমে এক হাজার টাকা থেকে শুরু করে পাঁচ হাজার টাকা করে পর্যন্ত উপবৃত্তি দিয়েছি।

এ বিষয়ে হরিরামপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শাহ আলম খোকনকে তার ব্যক্তিগত মুঠোফোনে একাধিকবার কল করলেও তিনি রিসিভ করে ব্যস্ত আছেন নি বলে ফোন কেটে দেন।

শেয়ার করুন

কমেন্ট করুন

     এই ধরনের আরও খবর

ফেসবুক

পুরাতন খবর খুঁজুন