একটুখানী ভুলের তরে সুদর্শনের সামনে এখন শুধুই অন্ধকার

মিনহাজুল ইসলাম মিলন, রংপুর প্রতিনিধিঃ নির্মান শ্রমিক ২৪ বছরের টকবগে যুবক সুদর্শন চন্দ্র বর্মনের জীবনের সব চাওয়া পাওয়া এখন পঙ্গুত্বের মধ্যেই ঘুরপাক খাচ্ছে। রংপুরের পীরগঞ্জ উপজেলার মিঠিপুর ইউনিয়নের কুতুবপুর (গবরা) গ্রামের মুকুল চন্দ্র বর্মনের পুত্র সুদর্শন। সামান্য একটু ভুলের কারনে আজ তার জীবন পুরোপুরি অন্ধকারে নিমজ্জিত। স্ত্রী ও দু শিশুকন্যা কে নিয়ে এই বয়সে সে এখন অন্যের দ্বারস্থ হচ্ছে প্রতিদিন। একদিকে চিকিৎসার ব্যয়,অন্যদিকে জঠরের জ্বালা।
সুদর্শন পেশায় একজন নির্মান শ্রমিক। অন্যান্য দিনের মতো চলতি বছরের ৯ জানুয়ারী পীরগঞ্জ উপজেলা সদরের ওসমানপুর গ্রামের নির্মানাধীন আর- রহমান জামে মসজিদে কাজ করতে গিয়ে অসাবধানতা বশত: তার হতে থাকা একটি রডের অপর প্রান্ত মসজিদের পাশের ৩৩ হাজার কেভি বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইনে স্পৃষ্ট হয়। সাথে সাথে সে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। সংজ্ঞাহীন অবস্থায় পীরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এ ভর্তি করা হয়। দুই দিন পর অবস্থার অবনতি হলে ১১ জানুয়ারী রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ও পরে ১৩ জানুয়ারী ঢাকা বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে দীর্ঘ ৪ মাস চিকিৎসাকালে তার শরীব থেকে দু’ হাতের কবজীর উপরে, বা পায়ের হাটু পর্যন্ত ও ডান পয়ের দুটি আঙ্গুল কেটে ফেলা হয়। বর্তমানে সে একজন হাত/ পা বিহীন এক পঙ্গু অসহায় মানুষ !
এ দুর্ঘটনার বিষয়ে কথা হলে হেড মিস্ত্রী সিরাজুল ইসলাম জানায়, দুর্ঘটনা কাউকে বলে কয়ে আসে না। এটা তার ভাগ্য। সিরাজুল আরও বলেন,সুদর্শনের চিকিৎসায় প্রায় আড়াই লক্ষ টাকা খরচ হয়েছে। আমরা এলাকাবাসী সাধ্যানুযায়ী সাহায্য সহযোগিতা করেছি।
সুদর্শন চন্দ্র জানায়, এলাকাবাসী ও হেড মিস্ত্রী আমাকে প্রায় দেড় লক্ষ টাকা দিয়েছে, বাকি টাকা আমার এলাকার লোকজন, শশুরবাড়ি ও পরিবারের লোকজন ব্যবস্থা করেছে।
সে আরো বলে, আমি বিত্তহীন । আমার একার উপার্জনে সংসার চলতো। আমার পরিবারে দুই শিশু কন্যা ও স্ত্রীসহ আমরা ৪ সদস্যের পরিবার। আমার বসত ভিটার ৩ শতক জমি ছাড়া আর কিছুই নেই। এ অবস্থায় সে প্রধানমন্ত্রী, স্পীকারসহ দেশের সহৃদয় বিত্তবান মানুষের নিকট সাহায্যের হাত বাড়িয়েছে।

শেয়ার করুন

কমেন্ট করুন

     এই ধরনের আরও খবর

ফেসবুক

পুরাতন খবর খুঁজুন