৭ বছরের প্রেম: বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে প্রেমিকার অনশন

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি: সুনামগঞ্জ তাহিরপুর উপজেলার ১নং উত্তর শ্রীপুর ইউনিয়নের ছিলানী তাহিরপুর গ্রামে বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে তিন দিন ধরে এক প্রেমিকা অনশনে আছেন।

প্রেমিক আরিফ মিয়া (২৪) সুনামগঞ্জ জেলার তাহিরপুর উপজেলার ছিলানী তাহিরপুর গ্রামের মো. এখলাস মিয়ার ছেলে ও প্রেমিকা ডালিয়া আক্তার (২১) এখই গ্রামের গ্রামের মো. আনোয়ার মিয়ার মেয়ে।

স্থানীয়রা জানান, বিয়ের দাবিতে(১৯ জুলাই) রোববার সকাল ১০ টার দিকে ডালিয়া আক্তার আরিফের বাড়িতে এসে অবস্থান নেন। পরের দিন সকাল ৭ দিকে ডালিয়াকে অমানুষিক নির্যাতন ও মারপিট করছে প্রেমিকের পরিবারের লোকজন।
ডালিয়া আক্তার জানান, সাত বছর ধরে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক। তাদের প্রেমের সম্পর্কের বিষয়টি দুপক্ষের পরিবারই যেনে যান। তাদের সম্পর্ক ছেলে পক্ষ মেনে নেননি। পরে ডালিয়ার পরিবার ডালিয়াকে কলমাকান্দা উপজেলার চত্রমপুর গ্রামে বিয়ে দেন, ৮ মাস আগে। বিয়ের কিছু দিন যেতে না যেতেই আবার ডালিয়ার সাথে যোগাযোগ শুরু করেন আরিফ। দীর্ঘ দুই মাস কথাবার্তা হয় দুজনের। আবার নতুন করে আরিফের প্রেমের ফাঁদে পা দেন ডালিয়া। এই দুমাসে একাধিক বার বিয়ের প্রতিশ্রুতিও দিয়ে ছিলেন প্রেমিক আরিফ। এক পর্যায়ে স্বামীকে ডিভোর্স দিতে বলেন।স্বামীকে ডিভোর্স দিয়ে বাড়ি ফিরলেই বিয়ে করবেন প্রেমিক আরিফ এবং আরিফের কথায় রাজি হয়ে স্বামীকে ডিভোর্স দিয়ে ডালিয়া ফিরে আসেন বাবার বাড়িতে। অর্থাৎ বিয়ের দুমাস পরপরই ডিভোর্স। বাড়িতে আসার পর প্রতিদিনই কথা হতো আরিফের সাথে, এভাবেই চলে যায় পাঁচ মাস কিন্তু বিয়ের কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি আরিফ। প্রেমের ফাঁদে ফেলে প্রেমিক আরিফ তাকে একাধিকবার ধর্ষণ করেছে। সম্প্রতি বিষয়টি পরিবার জেনে যায়। এরপর, গত এক মাস ধরে বিয়ের জন্য চাপ দিচ্ছিলেন তিনি এবং বিয়ে করতে রাজি হয়েছিলেন প্রেমিক।গত এক সপ্তাহ ধরে মেয়ের পরিবার তৃতীয় পক্ষের লোক জন নিয়ে ডালিয়া ও আরিফের বিয়ের বিষয়টি সুরাহা করতে চেয়েছিলেন কিন্তু তাতে রাজি হয়নি ছেলের পরিবার। এখন আরিফও তাদের প্রেমের সম্পর্ক অস্বীকার করে যোগাযোগ বিছিন্ন করেছে। এখন আমার সাথে আরিফ কোনো যোগাযোগ করেনা। বিয়ের বিষয়টিও নিশ্চিত করছে না আরিফ। এখন সেই সম্পর্ক অস্বীকার করছে আরিফ, তার পরিবারও এই সম্পর্ক মানতে নারাজ। এই পরিস্থিতিতে বাধ্য হয়েই প্রেমিকের বাড়িতে গিয়ে তিনি অনশন শুরু করেছেন। এখন প্রেমিক আরিফের মা-বাবা ও চাচারা মিলে আমাকে তাড়াতে ভয়ভীতিসহ অমানুষিক নির্যাতন ও মারপিট করছে। তবে প্রেমিক বিয়ে না করলে আত্মঘাতি হবেন বলেও জানান ওই প্রেমিকা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, আরিফ ও ডালিয়ার সম্পর্কের কথা গ্রামের সবাই জানে তবে ছেলের পরিবার প্রভাবশালী হওয়ায় ভয়ে কেউ কোন কথাও বলছে না এবং অনশনকারী মেয়ের কাছে কাউকে যেতেও দিচ্ছে না।

পলাতক থাকায় এ নিয়ে প্রেমিক আরিফের মন্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে তার বাবা এখলাস মিয়া জানান, তার ছেলের সঙ্গে ওই মেয়ের প্রেমের সম্পর্ক অস্বীকার করে বলেন ওই মেয়ে খারাফ, এমন মেয়েকে আমার ছেলের বউ হিসেবে আমি মেনে নিবো না।

ইউপি চেয়ারম্যান খসরুল আলম জানান, মেয়েটি এখনও প্রেমিক আরিফের বাড়িতে অবস্থানরত আছে। স্থানীয় পর্যায়ে সালিসী বৈঠকে বিষয়টি সমাধানের চেষ্টা করছি আমরা।

তাহিরপুর থানার ওসি মোঃ আতিকুর রহমান জানান, এ বিষয়ে মেয়ে বড় ভাই লিখিত অভিযোগ করেছেন। অভিযোগের তদন্ত চলছে, তদন্ত শেষে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে তিনি জানান।

শেয়ার করুন

কমেন্ট করুন

     এই ধরনের আরও খবর

ফেসবুক

পুরাতন খবর খুঁজুন