মোংলায় এক ইউপি সদস্য এর বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ

বাগেরহাট প্রতিনিধিঃ মোংলায় সুন্দরবন ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য এম নুরুল আমীন শেখ এর বিরুদ্ধে নানা অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। গত ২০১৬ সালে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ক্ষমতা গ্রহণের পর থেকে সরকারি যে সকল সুযোগ সুবিধা আসে সেটা সরকারি নিয়মের বাইরে জনসাধারনের কাছ থেকে মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে দেয়ার প্রতুশ্রুতি দিলেও সাধারন জনগন পায়না সরকারি এসব সুযোগ সুবিধা। স্থানীয়রা অভিযোগ করে বলেন, সরকারি পানির ছোট পাত্র নিতে গেলে দিতে হয় ৩’শ থেকে ৪’শ টাকা। বয়স্ক ভাতার ক্ষেত্রে গুনতে হয় ৮/৯ হাজার টাকা। বিধবা ভাতা, পঙ্গু ভাতা, সরকারি পানির ট্যাং, ভিজিপি কার্ড পেতে হলে দিতে হবে ৬/৭ হাজার টাকা।

রয়েছে নারী শ্লীলতাহানির মত ঘটনা।প্রায় দেড় বছর আগে ৬ নং ওয়ার্ডে এক গৃহবধুর অভিন্ন কৌশলে ফাঁসিয়ে দেয় এই নুরুল সদস্য। গৃহবধুকে সরকারি ঘর দেবার কথা বলে টাকা নেয় ৫ হাজার, বছরের পর বছর যায় ঘরের কোন হদিস পায় না এই গৃহবধু।
মেম্বারের কাছে টাকা ফেরৎ চাইলে দেওয়া হয় হুমকি ধামকি। সরকারি চাউলের কার্ডের কথা বলে নেয় ৩ হাজার টাকা হদিস নেই চাউলের ও।
এই গৃহবধু এখন ৩ সন্তান নিয়ে রয়েছে চরম বিপাকে, পায়না সরকারি কোন সহায়তা। অভিযোগ রয়েছে নকল নাম দিয়ে সরকারি চাউল থেকে শুরু করে সকল সুযোগ সুবিধা নিজেই ইউনিয়ন পরিষদ থেকে নিয়ে আসেন কিন্তু নাম মাত্র ৬০% কিছু লোক ঘুষের বিনিময়ে পেলেও অসহয় দিন-মজুরেরা সরকারি এ সব সুযোগ সুবিধা কিছুই পায়না। স্থানীয় এক ভুক্তোভোগী জানান সরকারি রেশনের কার্ড দেয়ার পর মাত্র ১ বার চাউল দেবার পর কার্ডটি কৌশলে
মেস্বার নুরুল নিয়ে যায় এবং লোকচক্ষুর আড়ালে চলে যায় এই কার্ডটি। ইউনিয়নের দোয়ারিজার আদর্শ গ্রামের মোন্তাজ উদ্দিন ফকির বলেন, সরকারি ঘর দেয়ার কথা বলে ১২ হাজার টাকা এবং ছোট পানির পাত্র দেয়ার কথা বলে ৩’শ টাকা নিয়ে ক্ষান্ত হয়নি এই মেম্বার। রাজনীতি কৌশল ব্যবহার করে বেদখল করে দেয় বসতি জায়গা, কোন রকমে রাস্তার পাশে ছোট একটা কুড়ে ঘরে থাকে মোন্তাজ।
এত শত অভিযোগের কিছুই যানেন না সুন্দরবন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শেখ কবির উদ্দিন। তিনি নিজেই উল্টা অভিযোগ ছুড়ে দিলেন
প্রতিপক্ষের উপর। শেখ কবির উদ্দিন বলেন,এসব অভিযোগ বানোয়াট ভিত্তিহীন, আমার ইউনিয়নে এসব ঘটনা আর আমি যানবো না,?

এ বিষয় ইউপি মেম্বারের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন,এটা হলো আমার প্রতিপক্ষের সাঁজানো।আপনারা সরেজমিনে গিয়ে দেখেন।আমি এর তীব্র নিন্দা যানাই।

এদিকে এ ঘটনায় সাংবাদিকরা ভুক্তোভুগীদের সাক্ষাৎকার নিয়ে আসার পর মেম্বারের লোকেরা একের পর এক দিয়ে যাচ্ছে হুমকি। বলা হচ্ছে গ্রাম ছেড়ে চলে যেতে।এর সমাধান চায় স্থানীয় সচেতন মহল।

তবে এসব দূর্নীতির শিকার ভুক্তোভুগীরা মেম্বারের উপযুক্ত বিচার চেয়েছেন খুলনা সিটি মেয়র আলহাজ্ব তালুকদার আঃ খালেক এর কাছে।

শেয়ার করুন

কমেন্ট করুন

     এই ধরনের আরও খবর

ফেসবুক

পুরাতন খবর খুঁজুন