কবি মোহন রায়হানের ৬৪তম জন্মদিন

লেলিন খান, স্টাফ রিপোর্টারঃ স্বাধীনতা-পূর্ব ও স্বাধীনোত্তর বাংলাদেশের রাষ্ট্রীয় পুনর্গঠনের সংগ্রাম এবং তৎপরবর্তী সামরিক শাসনবিরোধী লড়াইয়ের সাক্ষি মোহন রায়হান। যা তার কবিতার বিষয়বস্তু হয়েছে বারবার। আজ তার ৬৪তম জন্মদিন। শুভ জন্মদিন মোহন রাজশাহীর বাগবাটি ঘোড়চড়া গ্রামে ১ আগস্ট ১৯৫৬ সালে নানাবাড়িতে মোহন রায়হানের জন্ম। সিরাজগঞ্জের খোকশাবাড়ি ইউনিয়নের দিয়ারপাচিল গ্রাম তার পৈতৃক নিবাস। বাবা ফরহাদ হোসেন ছিলেন আজাদ হিন্দ ফৌজের সৈনিক।স্বাধীনোত্তর বাংলাদেশের রাষ্ট্রীয় পুনর্গঠনের সংগ্রাম ও তৎপরবর্তী সামরিক শাসনবিরোধী লড়াইয়ের গর্ভ থেকে মোহন রায়হানের অভ্যুদয়। বস্তুত মুক্তিযুদ্ধ-পরবর্তী সাম্য, মানবিক মূল্যবোধ, সামাজিক ন্যায় বিচারের স্বদেশ গঠনের আকাঙ্ক্ষা ও বিক্ষোভগুলি মোহন রায়হানের কবিতাকে ধারণ করে মূর্ত হয়ে উঠেছিল। তিনি বাংলাদেশের ধারাবাহিক রাজনৈতিক সংগ্রামের দহন থেকে উঠে আসা ইতিহাস মনোনীত এক কণ্ঠস্বর।

মোহন রায়হানের প্রজন্মের ইতিহাস আসলে বাংলাদেশ রাষ্ট্রের ইতিহাস। ১৯৭১ সাল ছিল হাজার বছরের বাঙালি জীবনের এক অত্যুচ্চ জাগরণ কাল। কিন্তু স্বাধীনতার পরে সমাজকাঠামো পুনর্গঠনের প্রশ্নে মুক্তিসেনাদের মধ্যে দেখা দেয় বিরোধ। অস্ত্র জমা দিতে না দিতে, আবার অস্ত্র হাতে ঘর ছাড়তে হয়েছে তাদের। এ সেই সময়, যখন জনগোষ্ঠী খোদ রচনা করেছে কবিতা। ‘একাত্তরের হাতিয়ার গর্জে উঠুক আরেকবার, অস্ত্র জমা দিয়েছি ট্রেনিং জমা দেইনি প্রভৃতি স্লোগানে প্রকম্পিত হয়ে উঠেছিল বিক্ষুব্ধ স্বদেশ। অর্জিত স্বদেশ পুনর্দখলের সেই লড়াইয়ের ভাষার উপর্যুপরি নির্মাণ ঘটেছে মোহন রায়হানের কবিতায়। জ্বলে উঠি সাহসী মানুষ ফিরে দাও সেই স্টেনগান আমাদের ঐক্য আমাদের জয় একদা তার কণ্ঠে ভর করে গর্জে উঠেছিল বাঙালির আর্ত পুনর্যুদ্ধের ডাক।

উপনিবেশ বিরোধী সংগ্রামে কাজী নজরুল ইসলামের ‘অগ্নিবীণা মুক্তিযুদ্ধে শামসুর রাহমানের ‘বন্দীশিবির থেকে’এবং স্বাধীনোত্তর পুনর্গঠনের লড়াইয়ে মোহন রায়হানের ‘ফিরে দাও সেই স্টেনগান’ বাঙালির একই রাজনৈতিক চেতনার ধারাবাহিক উচ্চারণ। মোহন রায়হানের কবিতার শিল্পমাত্রা এই মিথষ্ক্রিয়ার মধ্য দিয়ে অনুসন্ধান ছাড়া, নিছক সমাজ বদলের হাতিয়ারপন্থী অথবা তথাকথিত কলাকৈবল্যবাদীর কাছে সম্যক বুঝে ওঠা সম্ভব হয় না।

তিনি যখন ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র, মফস্বলে স্কুল পালিয়ে যোগ দেন ছয় দফা আন্দোলনের মিছিলে। ৬৯-এর গণঅভ্যুত্থানে মোহন তখন তুখোড় কিশোর ছাত্রনেতা। পরিনাম হিসেবে ভোগ করতে হয় পাক-পুলিশের বেদম রক্তাক্ত প্রহার। মাত্র ১৫ বছর বয়সে যোগ দেন মুক্তিযুদ্ধে। স্বাধীনতার পর যুক্ত হন জাসদ রাজনীতির সঙ্গে। ১৯৭৩ সালে আইএ পরীক্ষা দিতে হয়েছে জেলখানা থেকে। গুম আর অসংখ্যবার শারীরিক নির্যাতন শিকার হয়েছেন- পুলিশ, অার্মি অার দলবাজ সন্ত্রাসীদের হাতে। জেল খেটেছেন ১৩ বার। ৯০-এর স্বৈরাচারবিরোধী লড়াইয়ে সামিল ছিলেন সামনের সারিতে। ১৯৮২ সালের ২৪ মার্চ এরশাদ সামরিক শাসন জারি করা মাত্র মধুর ক্যান্টিন থেকে প্রথম প্রতিবাদী মিছিল বের হয় মোহন রায়হানের নেতৃত্বে। ১৯৮৩-এর ১১ জানুয়ারি সামরিক স্বৈরশাহীর বিরুদ্ধে প্রথম ছাত্রবিদ্রোহের নেতৃত্বও দেন তিনি। ওতপ্রোত ছিলেন ২০১৩ সালের শাহবাগ আন্দোলনেও।

বস্তুতপক্ষে বাংলাদেশের রাষ্ট্র সংগ্রামের প্রতিটি লড়াই, চড়াই-উৎরাই, ক্ষোভ-বিক্ষোভ, লাঞ্ছনা ও নিস্পন্দিত দুষ্কালকে তিনি যোগ্য মূহূর্তে প্রতিনিয়ত ধারণ করেছেন। বাংলাদেশের রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক ইতিহাসে মোহন রায়হানের ভূমিকার বিশেষ তাৎপর্য এখানেই। তিনি পৃথিবীর সেইসব বিরল যোদ্ধা-কবিদের একজন, রণাঙ্গণের ম্যাগজিন আর কবিতার ম্যাগাজিন যাদের হাতে নেচেছে সমান ছন্দে।

সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোট, জাতীয় কবিতা পরিষদের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা তিনি। বাংলাদেশ রাইটার্স ক্লাব, লেখক শিবির, অরণি সাংস্কৃতিক সংসদ, প্রাক্সিস অধ্যয়ন সমিতি, সাম্প্রদায়িকতা প্রতিরোধ কমিটি, একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটিসহ বহু সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের প্রতিষ্ঠা, নেতৃত্বে ও অান্দোলনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকায় ছিলেন তিনি। বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল- জাসদের কেন্দ্রীয় নেতা ছিলেন। মানুষের স্বাস্থ্যসেবা অধিকারে গড়ে তুলেছেন বিনা অপারেশনে হৃদরোগ চিকিৎসা হাসপাতাল ও বিষমুক্ত নিরাপদ খাদ্যের আন্দোলন।

জ্বলে উঠি সাহসী মানুষ, আমাদের ঐক্য আমাদের জয়, সামরিক আদালতে অভিভাষণ, আর হল না বাড়ি ফেরা, ফিরে দাও সেই স্টেনগান, শকুন সময়, সবুজ চাদরে ঢাকা রক্তাক্ত ছুরি, নিরস্ত্রীকরণ কবিতা, কবি কাপুরুষ হলে পৃথিবীতে নামে অন্ধকার, রক্তসিক্ত অশ্রুজবা, মেঘের শরীরে যাব, শাহবাগ ডেকেছে আমায়, কালো অাকাশে রক্তাক্ত মেঘ- প্রভৃতি তাঁর উল্লেখযোগ্য কাব্যগ্রন্থ।

শেয়ার করুন

কমেন্ট করুন

     এই ধরনের আরও খবর

ফেসবুক

পুরাতন খবর খুঁজুন