ভালুকায় চলন্ত গাড়ি থেকে চাঁদা নেয়ার সময় উপজেলা চেয়ারম্যানের হাতে চাঁদাবাজ আটক – গ্রামীন নিউজ২৪ টিভি

মোঃ নাজমুল ইসলাম, ভালুকা প্রতিনিধিঃ ময়মনসিংহের শিল্পনগরী ভালুকা উপজেলার ভালুকা টু গফরগাঁও রোডে কাক ডাকা ভোর হতে মধ্যরাত পর্যন্ত চলন্ত গাড়ি, পণ্যবাহী যেকোন যানবহন, ড্রামট্র্যাক, বালুভর্তি ট্র্যাক, লড়ি, মাছের গাড়ি থেকে পৌরকর বাবদ ৫০টাকা ও শ্রমিক ইউনিয়ন বাবদ ১০০টাকা করে প্রতিটি গাড়ি থেকে দুটি ভূয়া টোকেন দিয়ে চাঁদাবাজি করে আসছে বছরের পর বছর প্রসাশনের নাকের ডগায়। গত বছর এই গফরগাঁও রোড থেকে চলন্ত গাড়িতে চাঁদাবাজির সময় একজনকে আটক করে জেল হাজতে দিয়েছিলো ভ্রাম্যমাণ আদালত। তাতেও থেমে নেই অবৈধভাবে চলন্ত গাড়ি থেকে চাঁদা আদায়।

এই চাঁদাবাজদের একটি সক্রিয় সিন্ডিকেট রয়েছে যার গডফাদারদের আইনের আওতায় আনা জরুরি বলে জানান পরিবহন শ্রমিকরা। যানবহনে চাঁদা আদায় করতে গফরগাঁও রোডে রাস্তার মাঝেই গাড়ি থামিয়ে টাকা নিতে দীর্ঘ সময় যানজট লেগে থাকে প্রতিবাদ করলে এদের রোষানলের স্বীকার হতে হয়!

অবশেষে আজ ১২ ই আগষ্ট ভালুকা উপজেলা পরিষদের প্রতিবাদি চেয়ােম্যান আলহাজ্ব আবুল কালাম আজাদ ভালুকা বাসস্ট্যান্ডে খালি গাড়ী চলন্ত অবস্থায় গাড়ী থেকে পৌর কর বলে ৫০ টাকা এবং শ্রমিক ইউনিয়ন বলে ১০০ টাকা ড্রাইভারের কাছ থেকে চাঁদা নেওয়ার সময় হাতেনাতে ধরে পুলিশ প্রশাসনের নিকট হস্তান্তর করেন।

উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল কালাম জানান, আমার প্রশ্ন একটি খালি গাড়ী রাস্তা দিয়ে যাওয়ার সময় কোন চাঁদা নিতে পারে কি না? অনেক দিন যাবত এদের ধরার চেষ্টা করছি কিন্তু ধরতে পারিনি! আজ নিজ হাতে ধরে ভালুকা মডেল থানার ওসি মাঈন উদ্দিন সাহেব কে ফোন দিলে সাথে সাথেই তিনি ব্যবস্থা নেন। পরিবহন সেক্টরসহ ভালুকার মহাসড়কে যারা অবৈধ ভাবে চাঁদা করেন তারা কারা? তাদের গডফাদার কে? চাঁদাবাজরা আওয়ামীলীগের কোন নেতাকর্মী হলেও তাদের বিন্দুমাত্র ছাড় দেওয়া হবে না।

শেয়ার করুন

কমেন্ট করুন

     এই ধরনের আরও খবর

ফেসবুক

পুরাতন খবর খুঁজুন