তাহিরপুরে দুই গ্রুপের সংঘর্ষে আহত অর্ধশতাধিক – গ্রামীন নিউজ২৪ টিভি

শাবজল হোসাইন: সুনামগঞ্জের তাহিরপুরে আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হামলা সংঘর্ষের ঘটনায় আহত হয়েছেন প্রায় অর্ধশতাধিক লোকজন ।

শনিবার বিকেল চারটার দিকে উপজেলার বালিয়াঘাট নতুন বাজারে শুরু হওয়া ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া, হামলা সংঘর্ষ গড়ায় বিকেল সাড়ে ৬টা অবধি।

উপজেলার উত্তর শ্রীপুর ইউনিয়নের গোলকপুর গ্রামের বাসিন্দা জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ সভাপতি আবুল খায়ের ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি এবং ৫নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য একই গ্রামের অমৃতপুরের বাসিন্দা শফিকুল ইসলাম এ দুই নেতার সমর্থকদের মধ্যে ওই সংঘর্ষের ঘটনাটি ঘটেছে।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে দু’দফায় থানা ও ফাঁড়ি হতে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌছে এলোপাতারী লাটিচার্জ করলে সংঘর্ষে জড়িতরা সন্ধা সাড়ে ৬ টা নাগাদ বাজার ছেড়ে চলে যায় বলে এ প্রতিবেদককে জানান, তাহিরপুর থানার ওসি মো.আতিকুর রহমান।
এ সংঘর্ষের মুখে ওই বাজারের আতঙ্কিত ব্যবসায়ীরা সন্ধা ৭টা অবধি তাদের শতাধিক ব্যবসায়ীক প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখেন।
শনিবার সন্ধায় সরজমিনে স্থানীয় এলাকাবাসী ও উপজেলার বালিঘাঘাট নতুন বাজারস্থ ব্যবসায়ীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, উপজেলার গোলকপুর গ্রামের বাসিন্দা জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতা আবুল খায়ের ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি ইউপি সদস্য একই গ্রামের অমৃতপুরের বাসিন্দা শফিকুল ইসলামের মধ্যে স্থানীয়ভাবে আধিপত্য বিস্তার এবং গ্রাম পার্শ্ববর্তী শিংরার ধাইর নামক একটি জলমহাল নিয়ে পূর্ব বিরোধ চলে আসছিলো।
এসব পুর্ব বিরোধের জের ধরে শুক্রবার রাতে আপক্তির কথা বার্তা বলায় পরদিন শনিবার সকালে বালিয়াঘাট বাজারে শফিকুল ইসলামের পরিবারের লোকজন ও আবুল খায়েরের লোকজন বাদানুবাদে জড়িয়ে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় করেন।
এরপর বিকেল চারটার দিকে উভয় পক্ষের কয়েকশত সমর্থক আগাম ঘোষণা দিয়েই বাজারে সমবেত হয়ে দেশীয় অস্ত্র লাঠিসোটা ইটপাটকেল নিয়ে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন।
খবর পেয়ে প্রথম দফায় তাহিরপুর থানার টেকেরঘাট পুলিশ ফাঁড়ির একদল সদস্য ঘটনাস্থলে আসলেও পরিস্থিতি অনুকুলে না আসায় এরপর থানা হতে ওসির নেতৃত্বে অতিরিক্ত পুলিশ সদস্যরা বিকেল সাড়ে ৫টায় বাজারে পৌছে সংঘর্ষে জড়িত উভয়ে পক্ষের সমর্তকদের এলেপাতারী লাঠিচার্জ করে চত্রভঙ্গ করলে সংঘর্ষে জড়িতরা সন্ধায় বাজার ছেড়ে চলে যেতে বাধ্য হয়।

সংঘর্ষে শফিকুল পক্ষের আহতরা হলেন, ১,সুয়েল- ২.জাকির হোঃ ৩.কামরুল ৪.কিবরিয়া ৫.শোভা ৬.আলফাজ ৭.ফকির ৮.কাবিল ৯.সেনাজুল ১০.সিরাজুল ১১.হৃদয় ১২.শামীম ১৩.শাহ জাহান ১৪.জবরুল ১৫.আকিকুল ১৬.দুলাল ১৭.শোয়েব, সর্ব সাং অমৃতপুর।

এবং আবুল খায়ের পক্ষের আহতরা হলেন,
১.আবুল খায়ের ২.মনসাদ ৩.মনির হোসেন ৪.জাকারিয়া ৫.সেলিম ৬.আশরাফুল ৭.আব্দুল্লাহ সর্ব সাং গোলকপুর।
৮.হবিব মিয়া ৯.জাফর আলী ১০.আরিফ ১১.রফিক মিয়া ১২.আল ইসলাম ১৩.সাইবুল ১৪.সাইকুল ১৫.হাবিবুল ১৬.সাদিকুল ১৭.সবুজ মিয়া ১৮.পারভেজ ১৯. উকিল মিয়া সর্ব সাং বালিয়াট।
২০. সাজুল মিয়া, সাং বানিয়াগাঁও

তবে এলাকাবাসী ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, ঘটনার পর পুলিশী ধাওয়া খেয়ে শনিবার রাতে উভয় পক্ষের গুরুতর আহত কমপক্ষে ২০ হতে ২৫ জন সুনামগঞ্জ জেলা সদর ও তাহিরপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিতে এলাকা ছেড়ে চলে গেছেন।

আ’লীগ নেতা শফিকুল ইসলাম’র ছেলে জবরুল জানান, পূর্ব শত্রুতার জেরে গতকাল রাতে তার বাবা শফিকুল ইসলামকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করেন আবুল খায়ের। এর প্রতিবাদ করা’য় এক পর্যায়ে দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়, এবং এই সংঘর্ষে আরো তিনটি গ্রুপ আবুল খায়েরের দলে যোগ দেয়।

জেলা সেচ্ছাসেবক লীগের সহ সভাপতি আবুল খায়ের জানান, উনি বাড়ি থেকে বালিয়াঘাট নতুন বাজারের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হলে শফিকুল ইসলামের বাড়ির সম্মুখে আসা মাত্রই শফিকুল ইসলামের লোকজন তার উপর হামলা করে মুঠোফোন ছিনিয়ে নিয়ে যায়, এর জের ধরেই পরবর্তীতে দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়।

শনিবার রাতে তাহিরপুর থানার ওসি মো. আতিকুর রহমান বলেন, ফের সংঘর্ষের আশংকায় জনস্বার্থে উপজেলার বালিয়াঘাট বাজারে সন্ধার পর হতে অতিরিক্ত পুলিশ সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে।

শেয়ার করুন

কমেন্ট করুন

     এই ধরনের আরও খবর

ফেসবুক

পুরাতন খবর খুঁজুন