জেলখানার স্মৃতিকথা – গ্রামীন নিউজ২৪ টিভি

আমিরুল ইসলাম রাঙাঃ  ১৯৭৩ সালে ২১ মার্চ আটঘরিয়া উপজেলার বেরুয়ান গ্রাম থেকে রক্ষীবাহিনী আমাকে গ্রেপ্তার করে। আমার অপরাধ আমি জাসদ রাজনীতি করি । তখন আমার বয়স ১৯ বছরের মত। আমাকে গ্রেপ্তার করার ১৪ দিন আগে ১ম জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। সেই নির্বাচনে জাসদের প্রার্থী ছিলেন আটঘরিয়া-ঈশ্বরদী থেকে আনোয়ার হোসেন রেনু, পাবনা সদরের প্রার্থী ছিলেন ইকবাল হোসেন, সাঁথিয়া-বেড়া থেকে মোঃ নিজাম উদ্দিন, সুজানগর -বেড়া থেকে অধ্যক্ষ আমিরুল ইসলাম। উক্ত নির্বাচনে ছোট মানুষ হিসেবে আমার অনেক বড় ভূমিকা ছিল। আটঘরিয়ায় প্রার্থী মনোনয়ন থেকে শুরু করে নির্বাচনী প্রচারনায় প্রথম থেকে শেষ পর্যন্ত জড়িত ছিলাম।

প্রসঙ্গগত উল্লেখ্য, ১৯৭২ সালে ২১ থেকে ২৩ জুলাই ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সম্মেলনকে কেন্দ্র করে সংগঠনটি বিভক্তি হয়। ছাত্রলীগের বিভক্তির পর আমি পাবনা জেলা কমিটির যুগ্ম-আহবায়ক মনোনীত হই। পাবনা পলিটেকনিকের জিএস আব্দুল হাই তপন আহবায়ক হন । পাবনায় প্রথম অবস্থায় রব গ্রুপ ছাত্রলীগের পক্ষে ছিলেন রফিকুল ইসলাম বকুল, ফজলুল হক মন্টু, আহমেদ করিম প্রমুখ। তাঁদের অনুপ্রেরনায় আমরা রব গ্রুপ ছাত্রলীগে জড়িত হই। এই প্রসঙ্গে আরেকটি কথা উল্লেখ করা দরকার, স্বাধীনতার পর পাবনায় আওয়ামী লীগ রাজনীতি দুই ধারায় পরিচালিত হতো। একদিকে নেতৃত্ব দিতেন মোঃ নাসিম অন্যদিকে রফিকুল ইসলাম বকুল। আমি শুরু থেকে বকুল গ্রুপে ছিলাম। তখন বকুল গ্রুপের পক্ষে ছাত্রলীগ এবং শ্রমিকলীগ দেখার দায়িত্ব পালন করতেন ফজলুল হক মন্টু। কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের জুলাই মাসের সম্মেলনের আগেই ডাকসু নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগ ভাগ হয়ে যায়। এর প্রভাব পাবনাতেও পড়ে। মুক্তিযুদ্ধের আগে পাবনা জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ছিলেন আব্দুস সাত্তার লালু এবং সাধারন সম্পাদক ছিলেন রফিকুল ইসলাম বকুল।

স্বাধীনতার পর ছাত্রলীগের বিভক্তিতে নুরে আলম সিদ্দিকী গ্রুপে পাবনায় উল্লেখযোগ্য নেতারা ছিলেন, যথাক্রমে আব্দুস সাত্তার লালু, সাহাবুদ্দিন চুপ্পু, আব্দুর রহিম পাকন, রেজাউল রহিম লাল, আব্দুল কাদের প্রমুখ। শাহজাহান সিরাজের নেতৃত্বধীন রব গ্রুপ ছাত্রলীগে ছিলেন, রফিকুল ইসলাম বকুল, ফজলুল হক মন্টু, এডওয়ার্ড কলেজের ভিপি অখিল রঞ্জন বসাক ভানু এবং জিএস খোন্দকার আওয়াল কবীর, ইশারত আলী জিন্নাহ প্রমুখ। পরবর্তীতে জুলাই মাসের প্রথম সপ্তাহে রফিকুল ইসলাম বকুল এবং ফজলুল হক মন্টু গ্রুপ ত্যাগ করে নুরে আলম সিদ্দিকী গ্রুপে যোগ দেন। উনারা চলে গেলেও আমরা রব গ্রুপেই থেকে যাই।

রব গ্রুপ ছাত্রলীগ থেকে ১৯৭২ সালে ৩১ অক্টোবর জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল – জাসদ গঠিত হয়। কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি হন, মুক্তিযুদ্ধের নবম সেক্টর কমান্ডার মেজর এম এ জলিল এবং সাধারন সম্পাদক হন, ১৯৭১ সালে ২ মার্চ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কলাভবনে স্বাধীন বাংলার প্রথম পতাকা উত্তোলনকারী ডাকসুর ভিপি আসম আব্দুর রব। পাবনা জেলা জাসদের নেতৃত্ব গ্রহন করেন, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি অধ্যাপক রবিউল ইসলাম রবি , মুক্তিযুদ্ধের সময় পাবনা জেলা মুজিববাহিনী প্রধান ইকবাল হোসেন , জামিল আহমেদ, মুক্তিযোদ্ধা মোখলেছুর রহমান মুকুল প্রমুখ। ঈশ্বরদী, আটঘরিয়া, সাঁথিয়া, বেড়া, সুজানগরের মুক্তিযুদ্ধের প্রধান প্রধান কমান্ডারগন জাসদে যোগদান করেন। ঈশ্বরদীর শীর্ষ মুক্তিযোদ্ধা আমিনুল ইসলাম চুনু সরদার, জাফর সাজ্জাদ খিচ্চু, সদরুল হক সুধা, মতিউর রহমান কচি, খায়রুজ্জামান বাবু, গোলাম মোস্তফা বাচ্চু, আন্নি আটঘরিয়ার মুক্তিযুদ্ধকালীন কমান্ডার আনোয়ার হোসেন রেনু, আলী আশরাফ, কাশেম মুন্সী, সাদেক আলী বিশ্বাস, হাসান আলী, সাঁথিয়ার মুক্তিযুদ্ধকালীন কমান্ডার নিজাম উদ্দিন, বেড়ার আবদুল হাই সুজানগরের মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আহসান হাবীব সহ প্রমুখ নেতৃবৃন্দ জাসদে যোগ দেন।

১৯৭৩ সালে ৭ মার্চ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার ১৪ দিন পর রক্ষীবাহিনী আমাকে গ্রেপ্তার করে। ২১ মার্চ গভীর রাতে আটঘরিয়ার বেরুয়ান গ্রাম থেকে রক্ষীবাহিনী আমাকে গ্রেপ্তার করে। একই সময়ে বেরুয়ান গ্রামে মুক্তিযোদ্ধা সাদেক আলী বিশ্বাস এবং মুক্তিযোদ্ধা হাসান আলীর বাড়ীতে অভিযান চালালেও তাঁদের গ্রেপ্তার করতে পারেনি। আমাকে আটক করে মাজপাড়া ইউনিয়নের গোকুলনগর গ্রামে যায়। সেখানে জাসদ মনোনীত সংসদ সদস্য পদপ্রার্থী আনোয়ার হোসেন রেনু, মুক্তিযোদ্ধা আলী আশরাফ ও মুক্তিযোদ্ধা কাশেম মুন্সীর বাড়ী ঘেরাও করলেও তাঁদের আটক করতে ব্যর্থ হয়। এরপর সেখান থেকে আমাকে নিয়ে পাবনা মানসিক হাসপাতাল চত্বরে অবস্থিত রক্ষীবাহিনী ক্যাম্পে আনা হয়। ২২ মার্চ রক্ষীবাহিনীর লিডার ওলিউর রহমানের নেতৃত্বে অমানুষিক নির্যাতন করা হয়। আমার কাছে অবৈধ অস্ত্র আছে এই অজুহাতে ভয়াবহ নির্যাতন করা হয়। বিকাল থেকে রাত ১০/১১ টা পর্যন্ত শত শত লাঠির আঘাতে একপর্যায়ে জ্ঞান হারিয়ে ফেলি। ভোররাতে জ্ঞান ফিরে আসার পর নিজেকে আবিষ্কার করলাম একটি ছোট্ট রুমের মেঝেতে পড়ে আছি। জ্ঞান ফিরে দেখি আমার গোটা শরীর রক্তাক্ত। শরীরের জামা-কাপড়, হাড়-মাংস সব একাকার। মাথায় একাধিক জায়গা ফেটে রক্ত বের হচ্ছে। শরীরের ব্যথায় আমি কাতরাচ্ছি। আমার রুমের সামনে রক্ষীবাহিনীর এক সেন্ট্রী অস্ত্র হাতে বসে আছে। একপর্যায়ে সেন্ট্রী দয়াবশতঃ জিজ্ঞাসা করলো আমার কিছু লাগবে কিনা। আমি পানি খেতে এবং বাথরুমে যেতে চাইলাম। সেন্ট্রী আমাকে পানি দিলো। আমাকে ধরে বাথরুমে নিলো। তখন আমার উঠে দাঁড়ানোর শক্তি নাই। প্রচন্ড ক্ষুধায় মনে হচ্ছে আমার জীবনটা বের হয়ে যাবে। সেন্ট্রী কয়েক টুকরো রুটি আমাকে খেতে দিলো । কখন আবার ঘুমিয়ে পড়েছি সেটা আর মনে নাই।

২৩ মার্চ সকালে আমাকে ডেকে তোলা হলো। রক্ষীবাহিনীর ডিপুটি লিডার মাজদার রহমান আমার ঘরে ঢুকলেন । পাশের চেয়ারের উপর বসে আমাকে বললেন, আমি যদি অস্ত্র না দেই তাহলে আমাকে পিটিয়ে মেরে ফেলা হবে । সে আমাকে বাঁচাতে চায়। যেকোন ভাবে অস্ত্র জোগাড় করে দিলে উনি আমাকে জেলে পাঠানোর ব্যবস্থা করবেন। নতুবা আজই আমাকে মেরে ফেলা হবে। আমি যদি রক্ষীবাহিনীর লিডার ওলিউর রহমানকে বলি, আমাকে গ্রামে নিয়ে গেলে অস্ত্র দিতে পারবো। এই কথা বলে ডিপুটি লিডার মাজদার রহমান আমার রুম থেকে বের হয়ে গেলো

শেয়ার করুন

কমেন্ট করুন

     এই ধরনের আরও খবর

ফেসবুক

পুরাতন খবর খুঁজুন