নারায়ণগঞ্জে মসজিদে এসি বিস্ফোরণে নিহত ১১, আহত অর্ধশত – গ্রামীন নিউজ২৪ টিভি

গ্রামীন নিউজ ডেস্কঃ ফতুল্লার পশ্চিম তল্লা বাইতুস সালাম জামে মসজিদে এশার নামাজ শেষে মোনাজাত চলাকালেই বিকট শব্দে বিস্ফোরণ ঘটে একাধিক এসির। মুহূর্তেই মসজিদের ভেতরে আগুন ছড়িয়ে পড়ে। ওই সময়ে মসজিদে থাকা মুসল্লীদের গায়ে আগুনের ফুলকি গিয়ে পড়লে একে একে দগ্ধ হতে থাকে মুসল্লীরা। মসজিদের ভেতর থেকে আসতে থাকে মুসল্লীদের আত্মচিৎকার। এসময় এলাকাবাসী দগ্ধদের উদ্ধার করে স্থানীয় হাসপাতাল সহ ঢাকা বর্ণ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য প্রেরণ করে। সর্বশেষ প্রাপ্ত তথ্যে জানা যায়, এই অগ্নিকান্ডের ঘটনায় এখন পর্যন্ত শিশু সহ ১১ জন মারা গেছে। তবে মৃত্যুর সংখ্যা আরো বাড়তে পারে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ঢাকা বার্ন ইউনিটের প্রধান ডাঃ সামন্ত  লাল সেন। 

গতকাল রাতে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপ কালে নারায়ণগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. ইমতিয়াজ জানান, অগ্নিদগ্ধের মধ্যে ২০জনকে আশংকাজনক অবস্থায় ঢাকা পাঠানো হয়েছে। তাদের শরীরের বেশির ভাগ অংশ পুড়ে গেছে। পশ্চিম তল্লা বাইতুস সালাম জামে মসজিদের সামনে বৈদ্যুতিক ট্রান্সফরমার ও এসি বিস্ফোরণের ঘটনায় ইমাম ও মুয়াজ্জিনসহ ৩৭ জনকে আশংকাজনক অবস্থায় ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে আনা হয়েছে। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পুলিশ পরিদর্শক বাচ্চু মিয়া এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

স্থানীয়রা জানান, শুক্রবার রাত পৌনে ৯টায় মসজিদের ভেতরে থাকা এসি বিকট শব্দে বিস্ফোরণ ঘটে। মুহূর্তের মধ্যে মসজিদের ভেতরে থাকা ৬টি এসি একে একে বিস্ফোরণ ঘটলে মোনাজাতরত অর্ধশতাধিক জন মুসল্লীর মধ্যে আতংক ছড়িয়ে পড়ে। এ সময় হুড়োহুড়ি করে বের হতে গিয়ে প্রায় কমবেশী সকল মুসল্লী দগ্ধ ও আহত হয়। এলাকাবাসী দ্রুত দগ্ধ ও আহতদের উদ্ধার করে নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসকগণ কয়েকজনকে চিকিৎসা দিয়ে ছেড়েদেন অন্যান্যদের ঢাকা প্রেরণ করেন।

সিভিল সার্জন ডা. ইমতিয়াজ আরো জানান, অগ্নিদগ্ধ ২০ জনের অবস্থা এতটাই সংকটাপন্ন যে, তাদেরকে হাসপাতালে আনার সাথে সাথে ঢাকা পাঠিয়ে দেয়া হয়।

নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালের জরুরী বিভাগের ডাক্তার নাজমুল হোসেন জানান, রাত ৯টা হতে একের পর এক রোগী আসতে থাকে। তাদের সকলের নাম লিপিবদ্ধ করা হয়নি। যেসব রোগী এসেছে তাদের ৭০ থেকে ৭৫ ভাগ দগ্ধ হয়েছে। তাদের দ্রুত প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ঢাকা পাঠানো হয়েছে।

নারায়ণগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের উপ সহকারী পরিচালক আবদুল্লাহ আল আরেফিন জানান, ঘটনাস্থলে ফায়ার সার্ভিসের একাধিক টিম কাজ করে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে এবং আহতদের হাসপাতালে পাঠায়। খবর পেয়ে রাতেই জেলা প্রশাসক মো: জসিম উদ্দিন ও পুলিশ সুপার জায়েদুল আলম হাসপাতালে গিয়ে আহতদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করেন এবং পরে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। পশ্চিম তল্লা এলাকার অগ্নিদগ্ধদের স্বজনরা আহতদের সন্ধ্যানে হাসপাতাল ও ঘটনাস্থলে ভিড় করেছে। মসজিদ কমিটি সূত্রে জানা গেছে মসজিদে জেনারেল কোম্পানীর ৬টি এসি ছিল। বিদ্যুৎ এর আপ ডাউনের ফলে ট্রান্সফরমার বিস্ফোরণের পর একে একে মসজিদের এসিগুলি বিস্ফোরণ ঘটলে মসল্লীরা অগ্নিদগ্ধ ও আহত হয়।

শেয়ার করুন

কমেন্ট করুন

     এই ধরনের আরও খবর

ফেসবুক

পুরাতন খবর খুঁজুন