সম্পাদকীয়ঃ অগ্নিকান্ড নারায়নগঞ্জ

সাহিম রেজাঃ গতকাল শুক্রবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে নারায়ণগঞ্জ শহরের পশ্চিম তল্লা এলাকায় বায়তুস সালাত জামে মসজিদে বিকট শব্দে বিস্ফোরণ ঘটে। এতে অর্ধশতাধিক মুসল্লি দগ্ধ হন। তবে বিস্ফরনের কারন হিসাবে অনেকে মসজিদের এসি বিস্ফোরণের কথা বললেও, আবার অনেকে বলছে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে এই অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটেছে। এই ঘটনায় এলাকায় ব্যাপক শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

এই অগ্নিকান্ডের ঘটনায় তাৎক্ষনিক ভাবে ৩৭ জনকে উদ্ধার করে এলাকাবাসী ও স্থানীয় ফায়ার সার্ভিস। উদ্ধারকৃতদের প্রথমে নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ঢাকার শেখ হাসিনা বার্ন ইউনিটে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। সেখানে একসঙ্গে এত রোগী দেখে হাসপাতালে দায়িত্বরত চিকিৎসক, ষ্টাফগন প্রথমে আতঙ্কিত হয়ে পরেন। তবে এত রোগী দেখার পরেও চিকিৎসা দিতে ব্যাস্ত হয়ে পড়েন হাসপাতাল কতৃপক্ষ। তাদের আপ্রান চেষ্টার পরেও ৩৭ জনের মধ্যে ১১ টি প্রান ইতিমধ্যে হারিয়ে গেছে। আরো হারিয়ে যাওয়ার আশংকায় আছে বেশ কয়েকজনের।

মসজিদের ভিতরে এই বিস্ফোরণে সব কিছু লন্ড ভন্ড হয়ে গেলেও মসজিদে থাকা কোরআন শরিফ গুলো অক্ষত থেকে গেছে।

সরেজমিনে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায়, এলাকায় নিহত পরিবারের মাঝে চলছে শোকের মাতাম। অগ্ধিদগ্ধ হয়ে নিহত শিশু জুবায়ের মা বলছেন আমার ছেলেকে আগামী বৎসর আমি স্কুলে ভর্তি করাইতাম কিন্তু আমার বাবার আর স্কুলে যাওয়া হলো না। এই কথা বলেই সে মূর্ছা যাচ্ছেন বার বার। অন্য পরিবার গুলোতেও চলছে একই অবস্থা।

ঘটনা তদন্তে ইতিমধ্যে তদন্ত কমিটি গঠন হয়েছে ঘটনার সঠিক কারন তদন্তে। অগ্নিকান্ডের স্থান পরিদর্শন করেছে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসনের উর্ধতন কতৃপক্ষ।

এই ধরনের দুর্ঘটনা খুবই দুঃখজনক। আমরা চাই না এই ধরনের ঘটনা আবার ঘটুক। আমরা নিজেরাও যারা এসি ব্যাবহার করি তারা সচেতন থাকি। সময়মত এসি গুলোর সার্ভিসিং সহ সব ধরনের পরীক্ষা নিরীক্ষা করাই। এতে করে আপনার আমার জীবন রক্ষা পাবে।

শেয়ার করুন

কমেন্ট করুন

     এই ধরনের আরও খবর

ফেসবুক

পুরাতন খবর খুঁজুন