হাটহাজারি মাদরাসা বন্ধ ঘোষণা – গ্রামীন নিউজ২৪

বিশেষ প্রতিনিধিঃ আজ বৃহস্পতিবার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপনের ভিত্তিতে দেশের সব চেয়ে বড় আরবি বিশ্ববিদ্যালয় জামিয়া মঈনুল ইসলাম (হাটহাজারি মাদরাসা) বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। গতকাল ১৬ সেপ্টেম্বর উক্ত মাদরাসার ছাত্রদের আন্দোলনের প্রেক্ষিতে বিতর্কিত আনাস মাদানীকে মাদরাসার শিক্ষক ও শিক্ষা পরিচালকের পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে।গতকাল অব্যাহতির পরে ছাত্ররা তাদের আন্দোলন কিছুটা শিথিল করলেও আজ সকাল থেকে ফের আন্দোলনে নামে ছাত্ররা।বিক্ষুব্ধ ছাত্ররা আনাস মাদানীর কক্ষ ও পরিচালক আল্লামা শফির কক্ষের আসবাবপত্র ভাংচুর করেন বলে অভিযোগ উঠেছে।দীর্ঘদিন ধরে আনাস মাদানির বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে।গত ১৪ সেপ্টেম্বর সোমবার ঢাকার কামরাঙ্গামরিচর মাদরাসায় ইসলাহি জোট নামের এক রাজনৈতিক সমাবেশ করেন বিএনপিপন্থী বিভিন্ন ইসলামী দলের নেতারা।সেখানে যারা উপস্থিত ছিলেন তাদের মধ্যে অনেকে স্বার্থন্বেষী।যারা ২০১৩ সালে হেফাজতে ইসলামকে ব্যবহার করে বিএনপি জামায়াত কে পেছন দরজা দিয়ে ক্ষমতায় নিতে চেয়েছিল তারাই ইসলাহি জোটের সেমিনারে বক্তব্য দিয়েছে হাটহাজারি মাদরাসাকে, বেফাক হাইয়াকে দুর্নীতিমুক্ত করতে।বিশেষ করে ইসলামী ঐক্যজোটের মহাসচিব মুফতি ফয়জুল্লাহ, মঈনুদ্দীন রূহি,আল্লামা শফির পুত্র আনাস মাদানিকে হাটহাজারি মাদরাসা, বেফাক এবং হাইয়া থেকে বিতাড়িত করতে ইসলাহি জোটে বিএনপিপন্থী রাজনৈতিক দলের নেতারা ঐক্যবন্ধ হয়েছেন।

সেই ইসলাহি জোটের পর পরই হাটহাজারি মাদরাসার ছাত্ররা ৬ দফা দাবিতে আন্দোলনে নামেন।২০১৩ সালে হেফাজতকে যেমন নিজেদের রাজনৈতিক স্বার্থ হাসিলের জন্য ব্যবহার করেছিল আজ ছাত্রদের অান্দোলনকে তাদের রাজনৈতিক হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহারের ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে।মানছি হাটহাজারি মাদরাসার ছাত্রদের দাবি ও আন্দোলন যৌক্তিক।তাই বলে শাহাবাগি স্টাইলে স্লোগান ও ভাংচুর কওমী মাদরাসার ছাত্রদের দ্বারা হতে পারেনা।ভাংচুর আর উগ্র স্লোগানের কারণে তাদের যৌক্তিক আন্দোলনও প্রশ্নবিদ্ধ হতে পারে।গতকাল থেকে আজ পর্যন্ত কিছু বিএনপিপন্থী রাজনৈতিক দলের নেতা কর্মীরা চরমোনাইর পীর সাহেব ও তার সংগঠনের বিরুদ্ধে অাঙ্গুল তুলছে।তাদের অভিযোগ হলো এত বড় সংগঠন ও জনসমর্থন থাকতে তাদের ছাত্র সংগঠন কেন? হাটহাজারি ছাত্র আন্দোলনের পক্ষে মাঠে নামছেনা তাদের অভিযোগের ভিত্তিতে হোক বা দায়িত্ববোধ থেকে আজ ইশা ছাত্র আন্দোলন চট্টগ্রাম মহানগর শাখা মানববন্ধন করেছে। যারা হাটতে বসতে চরমোনাইর ওয়ালাদের দোষ খুঁজে হিংসুকে। এসব নির্বোধ লোকদের জন্য আজ কওমী মাদরাসার ইতিহাস ঐতিহ্য প্রশ্নবিদ্ধ। আজ যাদের বিরুদ্ধে তাদের অভিযোগ, যাদের দুূনীতি আর অনৈতিকতার বিরুদ্ধে কওমী অঙ্গন সোচ্চার তাদের বিরুদ্ধে প্রথম কলম ধরেছিল ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের নেতা।২০১৩ সালে হেফাজতে ইসলামের সাথে বিএনপি জামায়াতের আতাত এবং আনাস মাদানি,ফয়জুল্লাহ,রুহির অনৈতিক ও দুর্নীতি নিয়ে বই প্রকাশ করেছিলেন তৎকালীন ইসলামী আন্দোলন কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক অধ্যাপক বেলায়েত হোসেন।তখন হেফাজতে থাকা বিএনপি পন্থী রাজনৈতিক দলের নেতারা ইসলামী আন্দোলনের বিরুদ্ধে এক প্রকার যুদ্ধ ঘোষণা করেন।বিতর্ক এড়াতে তাকে দলের সকল পদ ও প্রাথমিক সদস্য পদ থেকেও সাসপেন্ড করেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের আমির মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করিম পীর সাহেব চরমোনাই।

যে সত্য কথা গুলো লেখার জন্য অধ্যাপক বেলায়োত হোসেন দল থেকে বহিঃস্কার হয়েছিল আজ ২০২০ সালে এসে হাটহাজারি থেকে বিতাড়িত হয় আনাস মাদানি,গণধোলাই খায় রুহি,আত্মগোপনে থাকে ফয়জুল্লাহ। আজ যারা এসব দালালদের বিরুদ্ধে ছাত্রদের মাঠে নামিয়েছেন তারা কি চরমোনাইর পীর সাহেব এর কাছে ক্ষমা চাইবেন? পারবেন কি ফিরিয়ে দিতে অধ্যাপক বেলায়েত হোসেন দীর্ঘ আট বছরের রাজনৈতিক ক্যারিয়ার ?খেলাফত মজলিস,ইসলামী ঐক্যজোট এবং জমিয়ত নেতারাই আল্লামা শফিকে আসমানে উঠিয়েছিল।স্বার্থ উদ্ধার করতে না পেরে এখন পুরাপুরি আল্লামা শফির বিরুদ্ধে। আপনাদের মাসনিকতা এমন হয়ে গেছে যে, যারা আওয়ামী লীগের দালালি করে তারা কওমী অঙ্গনের হর্তাকর্তা হতেই পারে না।কারণ তারা নীতিহীন। অথচ যারা সরাসরি বিএনপির জোটে এবং বিএনপির স্বার্থে রাজনীতি করে তারাই রাতারাতি বনে যায় কওমী অঙ্গনের সর্বেসর্বা। এদের অনেকেই দেশের শীর্ষ মুরব্বি ও আল্লামা।জমিয়ত নেতা গণতন্ত্র উদ্ধার করতে কাদিয়ানিপন্থী ডক্টর কামালের সমাবেশে যায়।কেউ কেউ বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়াকে কারামুক্ত করতে রাজপথে নামে।ঘুরে ফিরে তারাই হয়ে যায় উম্মার সেরেতাজ।যাদের ভাইয়ে ভাইয়ে ঐক্য নেই তারাই ঐক্যের নৈতিক বাণী নিয়ে মাইকে চিৎকার করে গলাফাটাই।

এসব রাজনৈতিক দলগুলো রাজনীতির ক্ষেত্র হলো কওমী মাদরাসা।আর রাজনৈতিক কর্মী হলো নীরহ কওমী মাদরাসার ছাত্র শিক্ষকরা। তাদেরকে শিক্ষকদের আনুগত্যের কথা বলে রাজনৈতিক স্বার্থ হাসিলে ব্যবহার করে।এসব ইসলামী রাজনৈতিক দলের নেতারা কওমী অঙ্গনের ঐক্যবদ্ধ প্লার্টফরম কে কখনো বিএনপির কাছে বিক্রি করে দেয়, আবার কখনো আওয়ামী লীগের কাছে কওমী চেতনা বর্গা দেয়।ঘুরে ফিরে এসব নীতিভ্রষ্টদের হাতেই চলে যায় কওমী মাদরাসা এবং মাদরাসা সংশ্লিষ্ট বেফাক, হাইয়া হেফাজতের নেতৃত্ব।রাজনৈতিক ময়দানে এদের কোন ভেল্যু নেই।রাজনৈতিক এতিমরাই কওমী মাদরাসার ছাত্র শিক্ষক নিয়ে স্বার্থ হাসিলের রাজনীতি করে।২০১৩ সালে হেফাজতে ইসলামের ডাকে সমবেত হওয়া নীরহ তৌহিদী জনতাকে অস্ত্রের মুখে ঠেলে দিয়ে রাতের অাঁধারে লন্ডনে পালিয়ে যাওয়া জুনাইদ অাল হাবিব যখন ইসলাহি সেমিনারে গিয়ে দুর্নীতির বিরুদ্ধে বজ্রহুংকার দেন বড্ড হাসি পায়।আবার দুঃখ লাগে পাশে বসে থাকা মাওলানা মামুনুল হকরা যখন বাহবা দেন।তখন বুঝতেই বাকি থাকে না সবাই একই গোত্রীয় লোক।তৌহিদী জনতার সেন্টিমেন্ট পেতে ঐক্যের নৈতিক বাণী চিৎকার করে বলে বেড়ায়। বিএনপিপন্থী এসব রাজনৈতিক এতিমদের একটাই চিন্তা কিভাবে চরমোনাইর ওয়ালাদের রাজনৈতিক ময়দানে কোণঠাসা করা যায়।২০১৩ সালে হেফাজতের অান্দোলন সংগ্রাম থেকে দূরে রাখতে আল্লামা শফিকে চরমোনাইর পীর সাহেবের বিরুদ্ধে ভুল তথ্য দিয়েছিল।

শেয়ার করুন

কমেন্ট করুন

     এই ধরনের আরও খবর

ফেসবুক

পুরাতন খবর খুঁজুন