তরুণ প্রজন্ম হয়ে যাচ্ছে হতাশাগ্রস্থ – গ্রামীন নিউজ২৪

হৃদয় বোসঃ এখন বলছি ১৩-১৭ বছর বয়সী ছেলে-মেয়েদের নিয়ে।আমাদের সমাজ এই শিশুশ্রেণিকে আবার বেশকিছু ধাপে বিভক্ত করেছে। জন্ম থেকে ৭ বছর বয়সীদের বলা হয় “শিশু”। ৭-১৭ বছর বয়সী শিশুদের বলা হয় “কিশোর”। ১৭ বছর বয়স পর্যন্ত সকল শিশুকে নাবালক/নাবালিকা বলা হয়। “বালক”/”বালিকা”শব্দটির সাথে “না” যুক্ত করে তাদের বয়সের অপরিপক্কতার বিষয়টি স্পষ্ট করা হয়েছে।

জাতিসংঘের বিধি মতে,বর্তমানে ১-১৭ এর মধ্যে যাদের বয়স তাদেরকে “শিশু” বলা হয়ে থাকে।প্রতিটি শিশু ভূমিষ্ঠ হওয়ার পরই তার পিতা-মাতার আদর,স্নেহ,ভালোবাসায় বেড়ে উঠে। আস্তে আস্তে শিশু যখন বুঝতে শেখে তখন শিশুর প্রাথমিক সামাজিকীকরণের বিষয়টি পরিবার থেকে শুরু হয়। এরপর সমাজ, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং বন্ধুবান্ধব সামাজিকীকরণে অভাবনীয় প্রভাব ফেলে। এক্ষেএে অভিভাবকদের কিছু গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব এবং কর্তব্য রয়েছে। নিয়মিত সন্তানের পড়াশোনা, কাদের সাথে মেলামেশা করছে, কোন বিষয়ে সে আগ্রহী,তার অবসর সময় কীভাবে কাটায় এসব বিষয়ে খোঁজ খবর রাখতে হবে। তার নিয়মিত আচার আচরণের দিকেও লক্ষ্য রাখতে হবে। কিন্তু এসবক্ষেত্র বেশিরভাগ অভিভাবক খুব বেশি যত্নশীল থাকে না।

তারা আবেগের বশবতী হয়ে এবং বন্ধু-বান্ধবীর প্ররোচনায় নানারকম অপরাধমূলক,অনৈতিক, সমাজবিরোধী কার্যক্রমে জড়িয়ে পড়ছে। হারিয়ে ফেলছে সামাজিক গ্রহণযোগ্যতা। তৈরি হচ্ছে হতাশা। জড়িয়ে পড়ছে নেশার জগতে। নষ্ট হয়ে যাচ্ছে পড়াশোনার আগ্রহ। সঙ্গ পাচ্ছে সমজাতীয় বন্ধুদের। তৈরি হচ্ছে কিশোর গ্যাং। বাড়ছে ইভটিজিং সহ নানারকম হয়রানিমূলক কর্মকাণ্ড। সমাজে সৃষ্টি হচ্ছে অরাজকতা। নষ্ট হচ্ছে শান্তি। অন্ধকারের অতল গহ্বরে হারিয়ে যাচ্ছে আগামী প্রজন্মের ভবিষ্যৎ।হারিয়ে যাচ্ছে হাজারো বাবা-মার লালিত স্বপ্ন। সম্ভাবনাময় তরুণ প্রজন্ম সর্বহারা রুপ নিচ্ছে।

এক্ষেত্রে সমাজ এবং পরিবারের সমান দায়বদ্ধতা রয়েছে। সমাজ তার চিরাচরিত রুপ অনুযায়ী একটু বেখেয়ালি দেখলেই ছেলে-মেয়েদের প্রতি বিরূপ মনোভাব প্রকাশ করে। একটু পরীক্ষায় রেজাল্ট খারাপ করলে পারিবারিক সাপোর্ট কিছুটা পেলেও সামাজিক বিরূপ দৃষ্টিভঙ্গি ছেলেমেয়েদের হতাশার আর একাকিত্বের সাথে বন্ধুত্ব করায়।যে ছেলে-মেয়েগুলো সামাজিক এবং পারিবারিক সঙ্গ,অনুপ্ররণা পেলে হয়তো তাদের স্বপ্ন এবং তাদের বাবা-মার কাঙ্ক্ষিত আশা বাস্তব রূপ দিতে পারতো আজ তাদের স্বপ্ন দেখার অধিকার দেয়না আমাদের সমাজ। স্বপ্ন দেখার আগেই আমাদের সমাজের তথাকথিত কিছু লোক তাদের স্বপ্নগুলোকে হত্যা করছে। সামাজিক শৃঙ্খলার আড়ালে দাফন করা হচ্ছে হাজারো স্বপ্ন। আমি নির্বাক দৃষ্টিতে স্বপ্নের কবরগুলোর সামনে দাড়িয়ে থাকি। তাদের আত্ন চিৎকার শুনি। ওরা বলে ওরা বাঁচতে চেয়েছিলো আমরা ওদের হত্যা করেছি। এই সমাজের প্রতিনিধি হিসেবে আমার মাঝে অপরাধবোধ কাজ করে।

আমাদের এই সমাজকে বলছি “দৃষ্টি ভঙ্গি বদলান”।পিতামাতাকে বলছি ছেলেমেয়ের খারাপ সময়ে তার পাশে থাকুন। তাকে সাহস দিন। দেখবেন স্বপ্নগুলো লড়াই করে হলেও বেঁচে থাকবে। সামাজিক অপরাধ কমে যাবে।শিক্ষিত সমৃদ্ধ সমাজ প্রতিষ্ঠিত হবে। “আসুন স্বপ্ন বাঁচাই”

শেয়ার করুন

কমেন্ট করুন

     এই ধরনের আরও খবর

ফেসবুক

পুরাতন খবর খুঁজুন