ঠাকুরগাঁওয়ে বিদ্যালয়ের ৬ তলা ভবন নির্মাণে অনিয়মের অভিযোগ – গ্রামীন নিউজ২৪

মোঃ মজিবর রহমান শেখ ঠাকুরগাঁও জেলা প্রতিনিধিঃ ঠাকুরগাঁও জেলার রাণীশংকৈল উপজেলার শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের কাজে অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। রাণীশংকৈল সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৬ তলা ভবন নির্মাণের ভিত্তি প্রস্থরের বেজ ঢালায়ে ব্যবহৃত পাথর নিয়ে এ অনিয়মের অভিযোগ ঐ অধিদপ্তরের বিরুদ্ধে। ঠাকুরগাঁও জেলা শিক্ষা প্রকৌশলী অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, দিনাজুপর জেলার সেতাবগঞ্জ উপজেলার মেসার্স খান এন্টারপ্রাইজ ও মা এন্টারপ্রাইজ নামক দুটি ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান টেন্ডার বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে গেল বছরের অক্টোবরে ৬ কোটি ১৭ লাখ ৬৭ হাজার ৯০০ টাকায় একটি বিদ্যালয়ের ভবন নির্মাণের কাজে চুক্তিবদ্ধ হয়েছে। ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান দুটি ৫শ ৪৫ দিনের মধ্যে নির্মাণ কাজ শেষ করার কথা রয়েছে। গত বছরের অক্টোবরে কার্যাদেশ পেলেও ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান দুটি সম্প্রতি ভবন নির্মাণের কাজ শুরু করেছে। শনিবার (৩ অক্টোবর) সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ভবনের ভিত্তি প্রস্থরের ইতমধ্যে সিসি ঢালায় দেওয়া হয়েছে। বর্তমানে বেজ ঢালায়ের কাজ চলছে। এতে অনিয়ম ভাবে ঢালায়ের মসলা তৈরিতে বালু ও পাথর নিয়মের চেয়ে অধিক ব্যবহার করা হচ্ছে।

নিয়মনুযায়ী বালু ও পাথর বহনের ভারা (নির্ধারিত বাক্স) সমান করে দেওয়ার কথা থাকলেও তা অনেক উচু করে দিয়ে মসলা তৈরি করা হচ্ছে। এতে এক ব্যাগ সিমেন্টে দিয়ে অতিরিক্ত মসলা তৈরি করে লাভবান হচ্ছে ঠিকাদার। বেজ ঢালায়ের নির্ধারিত বোডের মধ্যে বৃষ্টির পানি রয়েছে। সেই পানির মধ্যেই সিমেন্ট বালু পাথর মিশ্রিত মসলা দেওয়া হচ্ছে।

এদিকে বেজ ঢালায়ের জন্য নির্ধারিত থ্রি-ফোর সাইজের পাথরের সাথে ছোট বড় পাথর ব্যবহার করে ঢালায় কাজ চলছে। পাথরের স্তুপে থ্রি-ফোর পাথরের চেয়ে তুলনামুলক বড় ছোট ও গোল অচল পাথরের সংখ্যায় বেশি লক্ষ্য করা গেছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন নির্মাণ মিস্ত্রি বলেন, গোটা পাথর ভেঙ্গে থ্রি-ফোর পাথর হয়। তাই বাজারে এ পাথরের দাম একটু বেশি। এ পাথরের সাথে যদি অচল পাথর, গোল পাথর ও সাইজের চেয়ে একটু বড় পাথর মিশ্রিত হয়। তাহলে সে পাথরের দাম একটু কম হয়। সেপ্টি প্রতি ২০ থেকে ৩০ টাকা কমে পাথর কিনতে পাওয়া যায়। তাই ঠিকাদার এমন পাথর এখানে ব্যবহার করছে বলে তিনি মনে করেন। স্থানীয় সুমন, কবির সহ একাধিক ব্যক্তি অভিযোগ করে বলেন, নির্ধারিত সাইজের চেয়ে যদি বড় পাথর ব্যবহার করে ভবন নির্মাণ হয়। তাহলে ভবন নির্মাণ কর্তৃপক্ষ কেন পাথরের সাইজ নির্ধারণ করে দিয়েছে? ঠিকাদাররা শরীরের জোরে কাজ করছে। শহরের মধ্যে এমন একটি সরকারি প্রতিষ্ঠানের ভবন নিমার্ণের শুরুতেই যদি অনিয়ম হয় তাহলে পরবর্তীতে কি হবে তা বুঝার বাকি থাকছে না। জানতে চাইলে ভবন নির্মাণকারী মিস্ত্রি অনুপুল রায় বলেন, পাথরে কিছুটা বড় ছোট রয়েছে তা থাকবেই।

এ ব্যাপারে খান এন্টারপ্রাইজ ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের সত্বাধিকারী মাহবুর রহমান মুঠোফোনে বলেন, সমস্যা হলে ইঞ্জিনিয়ার পাথর পরীক্ষা করবে। আর পাথরে বড় ছোট থাকতেই পারে। শিক্ষা প্রকৌশলের উপ-সহকারী প্রকৌশলী অলক কুমার কুন্ডু বলেন, পাথরে ছোট বড় রয়েছে। এ জন্য তেমন সমস্যা হবে না। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বৃষ্টির পানি না কমায় পানি ছেঁকে ছেঁকে বেজ ঢালায় দেওয়া হচ্ছে। পরবর্তীতে ঢালায় দেওয়া স্থানে পানি জমলেও তেমন সমস্যা হবে না বলে তিনি মন্তব্য করেন। ঠাকুরগাঁও জেলা শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর সহকারী প্রকৌশলী বেলাল আহম্মেদ বলেন, পাথর নিয়ে এ রকম অভিযোগ তো হওয়ার কথা না। দেখি আমি আমার বড় স্যারকে নিয়ে নির্মাণাধীন বিদ্যালয়ের ভবনটি পরির্দশন করব।

শেয়ার করুন

কমেন্ট করুন

     এই ধরনের আরও খবর

ফেসবুক

পুরাতন খবর খুঁজুন