সুন্দরগঞ্জে শেষ মহুর্তে প্রতিমা তৈরি ও রং দিতে ব্যস্ত সময় পার করছে কারিগররা – গ্রামীন নিউজ২৪

ফাহিম হাসান, সুন্দরগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধিঃ দুর্গাপূজা আসতে আর মাত্র ক’দিন বাকি।সনাতন ধর্মাবলম্বীদের মহোৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষ্যে প্রতিমা তৈরি শেষ সময়ে এখন ব্যস্ত সময় পার করছেন গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জের কারিগররা। কাঁদা, মাটি, খড়-কাঠ, বাঁশ দিয়ে প্রলেপ এবং শুকানো নিয়েই এখন দিন-রাত কাটছে তাদের। দিন যতই এগিয়ে আসছে যেন ব্যস্ততা ততই বেড়েই চলছে। তাই প্রতিমা ও এর প্রত্যেকটির অনুষঙ্গ তৈরি, নিখুঁতভাবে কাজ ফুটিয়ে তুলতেই এখন সর্বোচ্চ মনোযোগ তাদের। প্রতিমা তৈরির খড়-কুটা, বাঁশ, সুতা, রশি, মাটি আনুষঙ্গিক কাঁচামালের দাম বেড়ে যাওয়ায় গত কয়েক বছরের তুলনায় এবার লাভ একটু কম হবে বলে জানান কারিগররা।

সুন্দরগঞ্জ উপজেলার বামনডাঙ্গা ইউনিয়নের ফলগাছা (ভাটার পার) নামক মহল্লায় ভুট্টু, সুকুমার,মানিক,চন্ডী ও অমুল্য এই পাঁচজনের কারিগর দল ১১ সেট প্রতিমা তৈরি করছেন।

প্রতিমাগুলোর আস্তর শুকানোর জন্য রোদে দেয়া হয়েছে। সৌন্দর্য বর্ধনের জন্য প্রতিমায় মাথা, হাতের আঙ্গুল,রং সহ বিভিন্ন উপকরণগুলো যুক্ত করা হচ্ছে। আগামী ২/৩ দিনের মধ্যে প্রতিমাগুলোর কারুকাজ সম্পূর্ণ করে মালিকের কাছে হস্তান্তর করা হবে বলে জানিয়েছেন তারা। কারিগর ভুট্টু জানান, গত কয়েক বছরের তুলনায় এবার প্রতিমা তৈরির কাঁচামালের দাম একটু বেড়ে গেছে। গত বছর এক গাড়ি মাটির দাম ২শ টাকা ছিল। এবার এক গাড়ি মাটি ২৫০ টাকা দিয়ে কিনতে হয়েছে। গতবার শাড়ি ১শ টাকায় কিনলেও এবার তা ১২০টাকায় কিনতে হয়েছে। এছাড়া রং, তুলিসহ অন্যান্য দামও বেড়ে গেছে।আরেক কারিগর সুকুমার জানান, এবার ১১ সেট প্রতিমা তৈরির অর্ডার নিয়েছেন। প্রতিমা তৈরির কাজ প্রায় শেষের দিকে। ক্রেতার চাহিদা ও পছন্দ অনুযায়ী ১৬ হাজার টাকা থেকে ২৫ হাজার টাকায় অর্ডার নিয়েছে। ২/৩ মধ্যে কারুকাজ সম্পূর্ণ হবে। এরপর মণ্ডপে মণ্ডপে পৌঁছে দেয়া হবে। চন্ডী জানান, বাপ দাদার ঐতিহ্য ধরে রাখতে প্রতিমা তৈরির কাজ করি। অনেক কষ্টের মাঝেও পেশাকে ধরে রেখেছি। বছরের এ মৌসুমে প্রতিমা তৈরি করে যা আয় হয় তা দিয়ে সংসার ঠিকমত চলে না। এজন্য পাশাপাশি দোকান করি।

উপজেলা পূজা উদযাপন কমিটি সূত্রে জানা যায়, শারদীয় দুর্গোৎসব উদযাপনে উপজেলায় একটি পৌরসভাসহ ১৫ টি ইউনিয়নের মোট ১৩৩ টি মণ্ডপে পূজা অনুষ্ঠিত হবে।

এ ব্যাপারে সুন্দরগঞ্জ থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আব্দুল্লাহিল জামান বলেন,এবারের শারদীয় দুর্গা পুজায় তিন স্তর বিশিষ্ট নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে।সবগুলো মণ্ডপ যাতে সুষ্টু ও শান্তিপূর্ণভাবে ধর্মীয় উৎসব পালন করতে পারে সেজন্য পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হবে।

শেয়ার করুন

কমেন্ট করুন

     এই ধরনের আরও খবর

ফেসবুক

পুরাতন খবর খুঁজুন