ময়মনসিংহের গৌরীপুরে মেয়র প্রার্থীকে কুপিয়ে হত্যা রিয়াদ চেয়ারম্যান সহ গ্রেফতার ৪ – গ্রামীন নিউজ২৪

বিশেষ প্রতিনিধিঃ ময়মনসিংহের গৌরীপুর পৌরসভার পানমহালে গণসংযোগকালে গত শনিবার সন্ত্রাসী হামলায় নিহত হন মাসুদুর রহমান শুভ্র। হামলায় গুরুতর আহত অপর দুজন ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

এ ঘটনায় ইলাকান্দা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা বিএনপির (একাংশের) যুগ্ম আহ্বায়ক রিয়াদুজ্জামান রিয়াদসহ চারজনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

মাসুদুর রহমান শুভ্র উপজেলা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক ও বিআরডিবির চেয়ারম্যান ছিলেন।

আজ রোববার ভোরে তারাকান্দা উপজেলার হারিগাছা এলাকা থেকে রিয়াদুজ্জামান রিয়াদকে গ্রেফতার করেছে গৌরীপুর থানা পুলিশ। এছাড়াও মইলাকান্দার কাউরাট এলাকা থেকে জাহাঙ্গীর আলম ও রাসেলসহ তিনজনকে গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন গৌরীপুর থানার ওসি মো. বোরহান উদ্দিন।

ঘটনার পর থেকে পুরো এলাকায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। শহরের সব ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে।

হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের ফাঁসির দাবিতে শহরে বিক্ষোভ মিছিল করেছেন আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, কৃষক লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। বিক্ষোভ মিছিলটি এক পর্যায়ে গৌরীপুর থানা ঘেরাও করে হত্যাকারীদের বিচারের দাবি জানায়।

এদিকে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন ময়মনসিংহের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আহমার উজ্জামান, গৌরীপুর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শাখের হোসেন সিদ্দিকী। তারা ঘটনাস্থলে উপস্থিত আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির বিষয়ে আশ্বস্ত করেন।

অপরদিকে বিক্ষুব্ধ জনতা গৌরীপুর পৌরসভার মেয়র সৈয়দ রফিকুল ইসলামের বাসাবাড়ি, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, তার ভাই সৈয়দ তৌফিকুল ইসলামের বাড়ি, মেয়রের ছোটভাই সৈয়দ মাজহারুল ইসলাম জুয়েলের ফার্নিচারের দোকান, উপজেলা বিএনপির একাংশের আহ্বায়ক ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আহাম্মদ তায়েবুর রহমান হিরণ ও তার ভাই মইলাকান্দা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রিয়াদুজ্জামান রিয়াদ ও তাদের আত্মীয়স্বজনের বাড়িতে অগ্নিসংযোগ ও ভাংচুর করেছে। হামলাকারীরা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার মো. রফিকুল ইসলাম ও প্রতিবেশী আনোয়ার হোসেন চন্দনের বাসাবাড়িতেও হামলা ও ভাংচুর চালায়। আগুন নিয়ন্ত্রণের জন্য ময়মনসিংহ ও ঈশ্বরগঞ্জের ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিট কাজ করেছে।

প্রত্যক্ষদর্শী ২নং গৌরীপুর ইউনিয়নের গজন্দর গ্রামের হামিদুর রহমানের পুত্র শামীম আহাম্মেদ (৩৭) জানান, উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক ও ১নং মইলাকান্দা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান রিয়াদুজ্জামান রিয়াদের নেতৃত্বে এ হামলা হয়েছে।

তিনি জানান, পানমহালের আবদুর রহিমের চায়ের দোকানে মাসুদুর রহমান শুভ্রসহ তারা ৪-৫ জন চা খাচ্ছিলেন। এ সময় দুটি সিএনজি দিয়ে এসে ৮-১০ জনের সঙ্গে রিয়াদুজ্জামান রিয়াদ চেয়ারম্যানও নামে। হঠাৎ করে দুজন তাকেও কোপ দিতে আসে। সে সরে যাওয়ায় চায়ের দোকানের খুঁটির বাঁশ কেটে গেছে। পরবর্তীতে চিৎকার দিলে ওই দুজন দৌড়ে পালিয়ে যায়। অন্যরা মাসুদুর রহমান শুভ্রর ওপর আক্রমণ চালায়। শুভ্র বাঁচার জন্য দৌড়ে মসল্লা মহালের সুমিত্রা মেডিকেল হলের সামনে যেতেই এলোপাতাড়িভাবে কুপিয়ে মারাত্মক জখম করে। শুভ্রর সঙ্গে থাকা আল আমিন ও জাহাঙ্গীরকেও কুপিয়ে গুরুতর জখম করে সন্ত্রাসীরা।

আহত তিনজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানিয়েছিল গৌরীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগে কর্মরত চিকিৎসক ডা. দীপঙ্কর চক্রবর্তী। সুমিত্রা মেডিকেল হলের মালিক নৃপেন্দ্র চন্দ্র বিশ্বাস জানান, শুভ্রকে তাড়া করে দুদিক থেকে তিনজন আসে। শুভ্র দোকানে এসে পড়ে যায়। আশপাশের লোকজন বেঞ্চ দিয়ে ফেরানোর চেষ্টা করে।

গৌরীপুর থানার ওসি মো. বোরহান উদ্দিন জানান, আহতরা ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মাসুদুর রহমান শুভ্র মারা গেছেন। লাশ ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে রয়েছে।

শেয়ার করুন

কমেন্ট করুন

     এই ধরনের আরও খবর

ফেসবুক

পুরাতন খবর খুঁজুন