আজ ১০ ডিসেম্বর ময়মনসিংহ ও মুক্তাগাছা মুক্ত দিবস – গ্রামীন নিউজ২৪

খালেদ খুররোম পারভেজ, ময়মনসিংহ প্রতিনিধিঃ ১৯৭১ সালের এই দিনে মুক্তিবাহিনী- স্বাধীনতাবিরোধী, আল বদর, আল সামস, পাকহানাদার বাহিনীর কবল থেকে ময়মনসিংহ জেলা ও মুক্তাগাছাকে মুক্ত করে। অর্জন করে আনে স্বাধীনতা।তাই আজ ১০ ডিসেম্বর ময়মনসিংহ ও মুক্তাগাছা মুক্ত দিবস।

৭১ এর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যক্ষ মতিউর রহমানের নেতৃত্বে ময়মনসিংহে বিজয় মিছিল বের হয়।

১০ ডিসেম্বর ১৯৭১ সালের এই দিনে পাক হানাদার বাহিনীর কবল থেকে মুক্ত হয় ময়মনসিংহ ও মুক্তাগাছা। দীর্ঘ ৯ মাসবাপী সশস্ত্র সংগ্রাম ও ত্যাগ শিকারের মধ্য দিয়ে ময়মনসিংহ ও মুক্তাগাছা শত্রুমুক্ত হয়। যুদ্ধ চলাকালীন সময়ে বর্বর পাকবাহিনীর নির্মম অত্যাচার, নির্যাতন, গণহত্যায় ছিন্ন-বিচ্ছিন্ন বিপর্যস্ত হয়ে পড়ে ময়মনসিংহের শহর ও গ্রামের জনপদ। মুক্তিকামী জনতার সকল বাধা অতিক্রম করে পাকবাহিনী ‘৭১ এর ২৩ এপ্রিল শুক্রবার দুপুর ১২টার দিকে জিপ ও ট্রাকের এক বহর নিয়ে জামালপুর থেকে ময়মনসিংহে যাওয়া পথে দখল করে নেয় মুক্তাগাছা। মুক্তাগাছায় প্রবেশ করার সময় রাস্তার দুই পাশের জনবসতির ওপর পাকবাহিনী অবিরাম গুলিবর্ষণ করে। শহরের বিভিন্ন স্থানে লুটতরাজ ও অগ্নিসংযোগ করে। পাকসেনাদের গুলিতে শহীদ হন অনেকেই।

২৩ এপ্রিলের আগে ‘৭০-এর নির্বাচনে স্থানীয়ভাবে নির্বাচিত প্রাদেশিক পরিষদের সদস্য খোন্দকার আবদুল মালেক শহীদুল্লাহ হানাদার বাহিনী প্রতিরোধে গড়ে তুলেন প্রতিরোধের দুর্গ। সামরিক সজ্জায় বলিয়ান না হলেও স্থানীয়ভাবে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্রের পাশাপাশি সামরিক কায়দায় প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করেন। খাদ্যের যোগান দেন ময়মনসিংহ ইপিআর কেম্পে অবস্থানরত বাঙ্গালী জওয়ানদের। ময়মনসিংহ পুলিশ লাইন থেকে ৫০টি রাইফেল ও প্রচুর গোলাবারুদ সংগ্রহ করে প্রথমে তার নিজ বাড়ি নন্দীবাড়িতে প্রশিক্ষণের কাজ শুরু করেন। এ সময় তার সহযোগী হিসেবে কাজ করেন শিশির কুমার রক্ষিত, সুভাষ চন্দ্র রক্ষিত, ফজলুল হক দুদু, আবদুল হাই আকন্দ, শ্রমিক নেতা হায়াতুল্লাহ ফকির, মহিউদ্দিন আহম্মদ, হুলাস চান আগরওয়ালা, রহিম খান বাদশা, আবুল কাসেম, বছির উদ্দিন, হাবিবুর রহমান, রেজাউল করিম জিন্নাহ সহ আরো অনেকে। এর মধ্যে অনেকেই আজ আর বেঁচে নেই।

২৯ মার্চ মেজর শফিউল্লাহ (পরে জেনারেল ও সেনাপ্রধান) তার বাহিনীসহ মুক্তাগাছায় এসে মহাবিদ্যালয়ে স্থাপন করেন অস্থায়ী ক্যাম্প। সেই সঙ্গে চালু হয় অস্থায়ী প্রশিক্ষণ শিবির। প্রাথমিক পর্যায়ে প্রশিক্ষকের দায়িত্ব পালন করেন ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টের নায়েক আবু রুশদ। পর্যায়ক্রমে প্রশিক্ষকের দায়িত্বে ছিলেন অবসরপ্রাপ্ত হাবিলদার রফিজ উদ্দিন রেফাজ ও সুবেদার আবদুল হামিদ।

এই শিবির থেকে বাছাই করা হয় ২৭ জন দু:সাহসী তরুণদের একটি দল। পাক হানাদারদের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর জন্য ১০ এপ্রিল মধুপুরে অবস্থানরত অন্যান্য মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে যোগ দেয় এই দল। অবশেষে খোন্দকার আবদুল মালেক শহিদুল্লাহসহ স্থানীয় নেতৃবৃন্দ ও সহযোগী লোকজন হালুয়াঘাট সীমান্ত অতিক্রম করে ভারতে আশ্রয় নিয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের প্রশিক্ষণ শেষে যুদ্ধের জন্য পাঠান এ অঞ্চলে। ২ আগস্ট স্থানীয় দালাল রাজাকার আলবদরদের সঙ্গে নিয়ে পাকবাহিনী মুক্তাগাছার ১০টি গ্রামে নির্বিচারে গণহত্যাচালিয়ে তিন শতাধিক নিরীহ গ্রামবাসীকে হত্যা করে। শহরের জমিদার বাড়ির ইদারা (কূপ), ময়লাখানা মাঝিপাড়া, মুজাটি, মহেশপুরসহ বিভিন্ন স্থানে গণহত্যা সংগঠিত হয়। বিভিন্ন স্থানে সম্মুখ যুদ্ধও সংগঠিত হয়। ভিটিবাড়ি গ্রামে মুক্তিবাহিনীর সঙ্গে পাকবাহিনীর সম্মুখ যুদ্ধ ছিল সবচাইতে দুঃসাহসিক।

মুক্তিযোদ্ধাদের গেরিলা তা-বে ৯ ডিসেম্বর দিবাগত রাতে টাঙ্গাইলের পথে পালিয়ে যায় হানাদার বাহিনী। ১০ ডিসেম্বর মুক্তিযোদ্ধাসহ মুক্তিকামী জনতা মুক্তির পতাকা প্রকম্পিত করে তুলে। হানাদার মুক্ত হয় মুক্তাগাছা। এ বছর দিবসটি পালনের লক্ষ্যে ময়মনসিংহ জেলা প্রশাসন ও মুক্তাগাছা উপজেলা পরিষদ ও প্রশাসন , পৌরসভা, মুক্তিযোদ্ধা সংসদসহ বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ মোমবাতি প্রজ্বলন, পতাকা ও শহীদদের প্রতি সম্মান প্রদর্শন করে গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয় এবং নানান কর্মসূচি হাতে নেওয়া হয়েছে।

শেয়ার করুন

কমেন্ট করুন

     এই ধরনের আরও খবর

ফেসবুক

পুরাতন খবর খুঁজুন